ম্যানচেস্টার সিটিই মেসির নতুন ঠিকানা?

ম্যানচেস্টার সিটিই মেসির নতুন ঠিকানা?

0

ক্রীড়া ডেস্ক, নগরকন্ঠ.কম : দলবদলের ইচ্ছার কথা জানিয়ে বার্সেলোনায় পাঠানো লিওনেল মেসির সেই বুরোফ্যাক্সের পর থেকেই তোলপাড় চলছে গোটা ফুটবলবিশ্বে। ২০ বছরের বন্ধন ছিন্ন করে বার্সেলোনা ছাড়তে চান মেসি- এ সত্যটা এখনও অবিশ্বাস্য লাগছে অনেকের কাছে। তবে চোয়াল ঝুলিয়ে দেয়া বিস্ময়ের মধ্যেও বড় যে প্রশ্নটা এখন সবার মনে, তা হল, আর্জেন্টাইন জাদুকরের পরবর্তী গন্তব্য কোথায়?

ইউরোপ ও লাতিন আমেরিকার শীর্ষস্থানীয় সব গণমাধ্যমই বলছে, মেসিকে দলে টানার দৌড়ে এগিয়ে ম্যানসিটি। চুক্তির শর্ত নিয়ে সিটির সঙ্গে আলোচনা এগিয়ে নিতে ম্যানচেস্টারে উড়ে গেছেন মেসির বাবা হোর্হে মেসি। তবে কোনো কিছুই এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

সিটি ছাড়াও আরও কয়েকটি ক্লাব নিজের মতো করে মেসিকে কেনার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। সেই তালিকায় পিএসজি ও ইন্টার মিলানের পাশাপাশি জোরেশোরে উচ্চারিত হচ্ছে সিটির পড়শি ম্যানইউর নাম। এরইমধ্যে নাকি মেসির বাবার সঙ্গে যোগাযোগ করেছে ম্যানইউ। পিএসজিও যোগাযোগ রাখছে। মেসির পাশাপাশি বার্সার আরেক ফরোয়ার্ড লুইস সুয়ারেজকেও দলে টানতে আগ্রহী ফরাসি চ্যাম্পিয়নরা। তবে নেইমার, এমবাপ্পে, ইকার্দি, মেসি ও সুয়ারেজের মতো বিশ্বমানের পাঁচ স্ট্রাইকারের একসঙ্গে খেলার গুঞ্জন বাস্তবসম্মত নয়।

এমন আরেকটি অবিশ্বাস্য সম্ভাবনার গল্প ফেঁদেছে ব্রাজিলীয় মিডিয়া। সাবেক বার্সেলোনা সতীর্থ নেইমারের সঙ্গে আবার জুটি বাঁধতে চান মেসি। তবে সেটি পিএসজিতে নয়, ম্যানসিটিতে! মেসি নাকি তার সঙ্গে সিটিতে যোগ দেয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন নেইমারকে। এমন অনেক খবরের ভিড়ে আপাতত মেসির সিটিতে যাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি আলোচিত। সেটি ইংলিশ ক্লাবটির আর্থিক সক্ষমতার পাশাপাশি কোচ পেপ গার্দিওলা ও বন্ধু সের্গিও আগুয়েরোর কারণে। শোনা যাচ্ছে সিটিতে যাওয়ার ব্যাপারে পুরোনো গুরু গার্দিওলার সঙ্গে নিয়মিত ফোনে কথা হচ্ছে মেসির। ওদিকে বার্সেলোনাও মেসিকে ধরে রাখার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বার্সার সঙ্গে মেসির চুক্তির একটি বিশেষ শর্ত নিয়ে দুই পক্ষের বিপরীতমুখী অবস্থানের কারণে ব্যাপারটি আদালতেও গড়াতে পারে। আইনি জটিলতার কথা মাথায় রেখে এরইমধ্যে ফিফার কাছে দলবদলের প্রাথমিক অনুমতিপত্র চেয়েছেন মেসি। যাতে কোনো ঝামেলা ছাড়াই বিনামূল্যে অন্য কোনো দলে যেতে পারেন তিনি। তবে ক্লাবের ইতিহাসের সেরা খেলোয়াড়কে বিনামূল্যে ছাড়তে নারাজ বার্সা।

এত জটিলতার কারণে ম্যানসিটিও বিকল্প পরিকল্পনা ঠিক করে রেখেছে। মেসি আইনি লড়াইয়ে জিতলে তাকে পেতে কোনো ট্রান্সফার ফি লাগবে না সিটির। সেক্ষেত্রে তাকে বছরে ১০০ মিলিয়ন ইউরো বেতন দিতেও সমস্যা হবে না। আর মেসিকে মুফতে পাওয়া না গেলে অন্তত ২০০ মিলিয়ন পাউন্ড ট্রান্সফার ফি গুনতে হবে। বিশাল অঙ্কের এ অর্থ মেসির জার্সি বিক্রি করেই তুলে ফেলতে পারবে সিটি। আরেকটি বিকল্প হল মেসির চুক্তিতে দু’জন খেলোয়াড়কে অন্তর্ভুক্ত করা। মেসির বিনিময়ে বার্সায় যোগ দিতে পারেন সিটির ব্রাজিলীয় ফরোয়ার্ড গ্যাব্রিয়েল জেসুস ও স্প্যানিশ ডিফেন্ডার এরিক গার্সিয়া। সুয়ারেজ ও জেরার্ড পিকের সম্ভাব্য উত্তরসূরি হতে পারেন তারা।

এ নিয়ে বার্সার সঙ্গে সমঝোতায় আসতে পারলে মেসির সঙ্গে পাঁচ বছরের চুক্তি করতে চায় সিটি। সে চুক্তির শর্ত অনুযায়ী, প্রথম তিন বছর সিটিতে এবং শেষ দুই বছর একই মালিকানার মার্কিন ক্লাব নিউইয়র্ক সিটিতে খেলতে হবে মেসিকে। তবে দলবদলের জন্য সবার আগে বার্সেলোনার সঙ্গে শান্তি চুক্তিতে আসতে হবে আর্জেন্টাইন মহাতারকাকে।

নগরকন্ঠ.কম/এআর

অনুরূপ খবর

0

0

কোন কমেন্ট নেই

উত্তর দিন