মঙ্গলবার, ২২ Jun ২০২১, ০৫:৪৬ অপরাহ্ন

শিরোনামঃ
একদিন হঠাৎ দেখি আমি নেই: স্পর্শিয়া প্যারাগুয়েকে হারিয়ে কোয়ার্টারে আর্জেন্টিনা, মেসির রেকর্ড কারওয়ান বাজারে ট্রেনের ধাক্কায় এক ব্যক্তি নিহত করোনায় স্ত্রীর মৃত্যুর ৩ ঘণ্টা পর চলে গেলেন স্বামীও নারায়ণগঞ্জে লকডাউন বাস্তবায়নে মাঠে পুলিশ চামড়া সংগ্রহ ও সংরক্ষণে যাতে অব্যবস্থাপনা তৈরি না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখার আহ্বান শিল্পমন্ত্রীর পরিকল্পিত পদক্ষেপেই বাংলাদেশ শীর্ষ এসডিজি বাস্তবায়নকারী দেশের একটি হতে পেরেছে : প্রধানমন্ত্রী ৫ লাখ পুষ্টিবাগান স্থাপন করা হবে: কৃষিমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিতে সরকারের কাছে বিএনপির দাবি ঢাকায় দূরপাল্লার গাড়ি ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না

ভুট্টা নিয়ে বিপাকে উত্তরের কৃষক

প্রতিবছর রংপুর বিভাগের আট জেলায় প্রায় ২ লাখ ৬০ হাজার হেক্টর জমিতে ২৮ থেকে ৩০ লাখ মেট্রিক টন ভুট্টার উৎপাদন হয়। উত্তরের জেলাগুলোতে উৎপাদিত বিপুল পরিমাণ ভুট্টা সরকারিভাবে ক্রয়, দর নির্ধারণ ও বিপণন ব্যবস্থাপনা নিয়েও নেই তেমন কোনো পরিকল্পনা। ফলে প্রতিবছর প্রায় দুই হাজার কোটি টাকা মুনাফা বঞ্চিত হচ্ছেন কৃষক।

চরাঞ্চলের কৃষকরা বলছেন, উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় মাঠে ৫শ’ থেকে ৬শ’ টাকা মণ দরে ভুট্টা বিক্রি করতে হচ্ছে। যা মাত্র দুই হাত ঘুরে প্রক্রিয়াকরণ প্রতিষ্ঠানে ৮শ’ থেকে ৯শ’ টাকা দরে বিক্রি হয়। ফলে প্রতি টনে পাঁচ থেকে ৭ হাজার টাকা মুনাফা বঞ্চিত হচ্ছেন তারা। যা মোট উৎপাদিত ভুট্টায় মুনাফা লোকসান ১৮শ’ থেকে দুই হাজার কোটি টাকা।

এ অবস্থায় কৃষিবিদদের দাবি, সম্ভাবনার ভুট্টা নিয়ে পরিকল্পনা করা গেলে পাল্টে যাবে এ জনপদ।

কৃষিবিদ শাহ আলম জানান, সরকারের উচিত এ অঞ্চলে উৎপাদিত ভুট্টা নিয়ে মহাপরিকল্পনা করা যাতে কৃষকরা লাভবান হতে পারে।

কৃষকের স্বার্থ সুরক্ষায় বিভিন্ন পরিকল্পনার কথা জানান মাঠ প্রশাসনের কর্তারা। লালমনিরহাটের জেলা জেলা বিপণন কর্মকতা আব্দুর রহিম বলেন, ‘আমরা যদি ভুট্টার একটা বাজারদর নির্ধারণ করতে পারি। আর কৃষকরা যেন নির্ধারিত বাজারদরে তাদের ভুট্টা বিক্রি করতে পারে সেজন্য আমরা সচেষ্ট আছি।’

লালমনিরহাট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর উপপরিচালক শামিম আশরাফ জানান, ভুট্টা প্রক্রিয়াজাতকরণ এলাকা গড়ে তুলতে পারলে কৃষরা লাভবান হতে পারবে।

এ বিষয়ে লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসক আবু জাফর বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে ভুট্টাকেন্দ্রিক কৃষি কারখানা স্থাপন বা বিনিয়োগ বাড়লে কৃষকরা সবচেয়ে বেশি লাভবান হবে।’

উত্তরের পিছিয়ে থাকা জেলা গুলোকে এগিয়ে নিতে, ভুট্টাকেন্দ্রিক যুগোপযোগী পরিকল্পনা করা গেলে গড়ে উঠতে পারে টেকসই শিল্প প্রতিষ্ঠান। আর এতে ঘুরে দাঁড়াবে এ অঞ্চলের কৃষি অর্থনীতি।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com