শুক্রবার, ১৮ Jun ২০২১, ০৬:০৮ অপরাহ্ন

শিরোনামঃ
করোনায় কাজ হারিয়েছেন ৬২ শতাংশ মানুষ আন্তর্জাতিক শ্রম সম্মেলনে কোভিড মোকাবেলায় গ্লোবাল কল টু এ্যাকশন গ্রহণে নেতৃত্ব দিল বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক শ্রম সম্মেলনে কোভিড মোকাবেলায় গ্লোবাল কল টু এ্যাকশন গ্রহণে নেতৃত্ব দিল বাংলাদেশ ইরানে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রথম সর্বোচ্চ নেতা আলী খামেনি ভোট দিয়েছেন শ্লোগান নয়, আন্দোলনের মাধ্যমে মুক্ত করতে হবে খালেদা জিয়াকে: গয়েশ্বর খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে স্ট্যান্টবাজিই বিএনপির বর্তমান উদ্দেশ্য: হানিফ শুরু হচ্ছে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের সুপার লিগ পর্ব ফের গাজায় বিমান হামলা চালাল ইসরায়েল বেতন বাড়ছে ক্রিকেটারদের সখীপুরে উপবৃত্তিবঞ্চিত কয়েক হাজার শিক্ষার্থী

বজ্রপাতে সাতজনের মৃত্যু, আহত ৯

মঙ্গলবার (১৮ মে) বেলা ৩টা থেকে বিকাল ৪টার মধ্যে বজ্রপাতে নিহতের এসব ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে খালিয়াজুরীতে তিনজন নিহত ও পাঁচজন আহত, কেন্দুয়ায় ২ জন নিহত ও মদনে ২ জন নিহত এবং চারজন আহত হয়েছেন।

সকাল থেকে জেলায় ভারি বৃষ্টিপাত শুরু হয়। এর সঙ্গে বজ্রপাত। জেলার খালিয়াজুরী উপজেলায় মাঠে কাজ করার সময় তিন কৃষকের মৃত্যু হয়। নিহত তিনজন হলেন: জগন্নাথপুর গ্রামের ছেলু ফকিরের ছেলে ওয়াছেক মিয়া (৩৫), আমীর সরকারের ছেলে বিপুল মিয়া (৩২) ও বাতুয়াইল গ্রামের মঞ্জুরুল হকের ছেলে মনির হোসেন(২৮)।

খালিয়াজুরী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা এএইচএম আরিফুল ইসলাম জানান, বিকাল সোয়া ৩টার দিকে খালিয়াজুরী উপজেলাতে বজ্রপাতসহ ভারি বৃষ্টি হচ্ছিলো। এসময় উপজেলার পুটিয়ার খালে ওয়াছেক, বিপুল ও মনির হোসেন মাছ ধরছিলেন। তখন বজ্রপাতের আঘাতে তারা ঘটনাস্থলেই মারা যান।

এছাড়া, কেন্দুয়া উপজেলায় মাঠে কাজ করতে গিয়ে বজ্রপাতে দুইজন কৃষক মারা গেছেন। মারা যাওয়া কৃষকেরা হলেন: পাইকুড়া ইউনিয়নের বৈরাটী গ্রামের মো. বায়েজিদ মিয়া (৪২) ও কান্দিউড়া ইউনিয়নের কুণ্ডলী গ্রামের মো. ফজলুর রহমান (৫৫)। নিহত বায়েজিদ বৈরাটী গ্রামের আসন খানের ছেলে আর নিহত ফজলু মিয়া কুণ্ডলী গ্রামের তরব আলীর ছেলে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুরে কৃষক বায়েজিদ মিয়া ও ফজলুর রহমান তাদের নিজ নিজ বাড়ির সামনে সবজি ও ধানক্ষেতে কাজ করছিলেন। এসময় হঠাৎ করে মুষলধারে বৃষ্টি শুরু হয়। এক পর্যায়ে বজ্রপাতে তাদের শরীর ঝলসে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে কেন্দুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক পিয়াস পাল তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে, মদন উপজেলায় বজ্রপাতে আরো দুুইজনের মৃত্যু হয়। নিহতা হলেন: উপজেলার ফতেপুর গ্রামের আব্দুল মন্নাফের ছেলে আতাবুর (২১) ও আব্দুল কাদিরের ছেলে শরিফ (১৮)।

মদন থানার ওসি ফেরদৌস আলম জানান, বেলা সাড়ে ৩টার দিকে বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের মধ্যে বাড়ির সামনে মাঠে তারা খেলা করছিলো। এসময়  বজ্রপাতের শিকার হয়ে ২ জন মারা যায় আর চারজন আহত হয়। এছাড়া বাড়ির সামনে কাজ করার সময় বজ্রপাতে আহত হন সুরমা আক্তার নামে এক নারী। আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে মদন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠিয়েছেন।

নেত্রকোণার পুলিশ সুপার মো. আবকর আলী মুন্সি নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। নিহত ও আহত সকলেই মাঠ করছিলেন।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com