শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৯:৫৬ অপরাহ্ন

১৬ মিনিটের সংবাদ সম্মেলনে সব শেষ

বাংলাদেশের ক্রিকেটের উজ্জ্বল নক্ষত্র তামিম ইকবাল। মাশরাফি বিন মর্তুজা, সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এই পাঁচজনকে বলা হয় বাংলাদেশ ক্রিকেটের পঞ্চপাণ্ডব। তারা সবাই ছিলেন সাবেক অধিনায়ক। আর আগে বিদায় নিয়েছেন মাশরাফি। আনুষ্ঠানিকভাবে তামিম গতকাল শুধু ওয়ানডে নয়, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকেও অবসর নিয়ে নিলেন। থেমে গেল বর্ণিল অধ্যায়। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ দলে এখন অনিয়মিত।

‘এটা কী করলো? এরকম কিছু তো আমরা কেউ-ই প্রত্যাশা করিনি।’ -বিসিবির এক পরিচালক এভাবেই তামিম ইকবালের আন্তর্জাাতিক ক্রিকেট ছাড়ার ঘোষণার প্রতিক্রিয়া দিচ্ছিলেন।

ক্রিকেট মহলের অনেকেই বিশ্বাস করতে পারছিলেন না বৃহস্পতিবার দুপুরে তামিম আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন। অবশ্য ‘দেয়ালে পিঠ না ঠেকলে’ এমন কেউ কি করতেন? সেই প্রশ্নই এখন চারপাশে ঘুরপাক খাচ্ছে। তামিমের পিঠে দেয়াল ঠেকেছে ঠিকই! সেই দেয়াল দাঁড় করিয়ে দিয়েছে স্বয়ং বোর্ড কর্তারাই।

শোনা যাচ্ছে, তামিমের সাম্প্রতিক সময়ের ফিটনেস এবং ব্যাটিং নিয়ে যথেষ্ট কানাঘুষা চলছিল বোর্ড মহলে। সেসব কানে আসে তামিমেরও। তা মোটেও ভালোভাবে নেননি ওয়ানডে অধিনায়ক। আর এসব নিয়ে বোর্ডের শীর্ষ মহলেও যখন আলোচনা হয়েছে তখন সেই স্থান ত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নিতে বিন্দুমাত্র চিন্তা করতে হয়নি তামিমকে। যেখানে তামিমের ব্যক্তিত্বেরই জয় দেখছেন অনেকে।

তামিমের হাত ধরেই বাংলাদেশ ওয়ানডে সুপার লিগের লড়াই শুরু করেছিল। কিন্তু তার অধিনায়কত্ব নিয়ে শুরু থেকেই উঠেছিল নানা প্রশ্ন। সফলতম অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশকে যেখানে রেখে গেছেন, সেখান থেকে তামিম এগিয়ে নিতে পারবেন কি না সেসব নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছিল। তামিম নিজের কারিশমায় মাঠেই নিন্দুকের জবাব দিয়েছেন।

১৫৫ পয়েন্ট নিয়ে আইসিসি ক্রিকেট ওয়ার্ল্ড কাপ সুপার লিগে তিনে থেকে শেষ করেছে বাংলাদেশ। ২৪ ম্যাচে ১৫ জয়, ৮ হার। ১ ম্যাচে ফল বের হয়নি। নতুন অধিনায়কের সামনে চ্যালেঞ্জ ছিল ৫০ ওভারের ক্রিকেটে পুরোনো ধারাবাহিকতা ধরে রাখা। যে কাজটা তামিম খুব সিদ্ধহস্তেই করেছেন। কিন্তু ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে প্রত্যাশার চূড়া ছুঁতে পেরেছেন কিনা তা নিয়েই নানা মহলে প্রশ্ন উঠে।

যদিও পরিসংখ্যান তামিমের পক্ষেই কথা বলছে। সুপার লিগে তামিম দেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি রান করেছেন। ২৪ ইনিংসে তার রান ৭৮৩। গড় রান ৩৪.০৪। স্ট্রাইক রেট ৭৬.২৪। ১ সেঞ্চুরির সঙ্গে হাঁকিয়েছেন ৬ হাফ সেঞ্চুরি। তার স্ট্রাইক রেট, ব্যাটিং অ্যাপ্রোচ নিয়ে যথেষ্ট প্রশ্ন উঠছে। কিন্তু পরিসংখ্যান বলছে, অন্যদের চেয়ে একেবারেই খারাপ করেননি বাংলাদেশের অধিনায়ক।

তামিমের সংবাদ সম্মেলনের খবর রাতেই বিসিবির একাধিক পরিচালক ও বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসানের কানে পৌঁছায়। রাত থেকেই তামিমের ফোনে আসতে থাকে একাধিক ফোন। আসতে থাকে বার্তা। কিন্তু তামিম দিচ্ছিলেন না সাড়া। তবে সকালে তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পেরেছিল নীতিনির্ধারকরা। তাকে অনুরোধও করা হয়েছিল অবসরের মতো কঠিন সিদ্ধান্ত যেন না নেওয়া হয়। এমনকি আফগানিস্তানের বিপক্ষে সিরিজ শেষ হওয়ার পর আলোচনায় বসার প্রস্তাবও দেয়া হয়।

কিন্তু বিসিবির কোনো অনুরোধই রাখেননি তামিম। তার মনের ভেতরে কি চলছিল সেসব জানতে দেননি সতীর্থদেরও। সকালে ব্রেকফাস্ট টেবিলেও সাবলীল ছিলেন। এরপর বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে একাই বেরিয়ে আসেন হোটেল থেকে। সেখান থেকে গন্তব্য ছিল টাওয়ার ইনের সংবাদ সম্মেলন। ১৬ মিনিটের সংবাদ সম্মেলন শেষে তামিম ফিরে যান নিজেদের বাসায়। ফেরেননি আর টিম হোটেলে। ফিরবেন কী করে! তামিম তো বলেই দিয়েছিলেন, ‘অবসরের সিদ্ধান্ত এখন থেকেই কার্যকর।’

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com