সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৩৫ অপরাহ্ন

বিরোধীজোটের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা আজ

বিএনপিসহ সমমনাদের ডাকে ৪৮ ঘণ্টার অবরোধের প্রথম দিনে ঢাকাসহ সারা দেশে নেতাকর্মী সড়ক অবরোধ করে মিছিল, পিকেটিং করেছেন। বিগত অবরোধের তুলনায় কর্মসূচিতে বাড়তে শুরু করেছে কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতি। রোববার অবরোধের সমর্থনে অনেক কেন্দ্রীয় নেতা মিছিলের নেতৃত্বও দিয়েছেন। আজ অবরোধ কর্মসূচি শেষে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার প্রস্তুতির ওপর নির্ভর করেই আসছে পরবর্তী কর্মসূচি। তবে আবারও অবরোধ কর্মসূচি আসতে পারে বলে জানা গেছে।

দলটির নেতারা জানান, এক দফা আন্দোলনকে চূড়ান্ত রূপ দিতে তারা ধাপে ধাপে তীব্রতা বাড়াবেন। তফসিল ঘোষণার পর থেকে সেটা আরও স্পষ্ট হবে। ওইদিন থেকে তারা ডু অর ডাই আন্দোলনে যাবেন। এজন্য তাদের সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিয়েছেন তারা।

রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ:সরকার পতনের একদফা দাবিতে চতুর্থ ধাপের ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ কর্মসূচির প্রথম দিনে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় সড়ক অবরোধ, বিক্ষোভ-মিছিল ও পিকেটিং করেছে বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী। সকালে মতিঝিলের আইডিয়াল স্কুল এলাকায় দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর নেতৃত্বে বিক্ষোভ-মিছিল বের হয়। এ সময় তিনি নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সড়ক অবরোধ করে পিকেটিং করেন। আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. রফিকুল ইসলাম, সহ স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. পারভেজ রেজা কাকন প্রমুখ। দুপুরে যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ রেলগেট, চকবাজার উর্দু রোড, খিলগাঁও, ধানমণ্ডিতে এবং আরামবাগে বিক্ষোভ-মিছিল ও পিকেটিং করে স্বেচ্ছাসেবক দল ঢাকা মহানগর দক্ষিণ। সংগঠনের সভাপতি এ এ জহির উদ্দিন তুহিন ও সাধারণ সম্পাদক সাদ মোর্শেদ পাপ্পা শিকদারের নেতৃত্বে এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতা কাজী মোখতার হোসাইনসহ বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মী।

বনশ্রীতে মিছিল করেছে ছাত্রদলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাশেদ ইকবাল খান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদল কেন্দ্রীয় নেতা আক্তার হোসেন, মিজানুর রহমান শরিফ, আজিজুল হক জিয়ন প্রমুখ। সকালে রাজধানীর ইস্কাটন ও বাংলামোটর এলাকায় বিক্ষোভ-মিছিল করে তেজগাঁও কলেজ ছাত্রদল। সংগঠনের সভাপতি ফয়সাল দেওয়ান ও সাধারণ সম্পাদক বেলাল হোসেন খানের নেতৃত্বে এ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিল থেকে পুলিশ একজনকে আটক করে ডিবি পুলিশ।

গুলশানে বিক্ষোভ-মিছিল করেছে ছাত্রদলের নেতাকর্মী। মিছিলে ছিলেন ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি সৈয়দ সাইফুজ্জামান সাইফুল, আকতারুজ্জামান আক্তার, নাছির উদ্দিন নাছির, ছাত্রনেতা এমএম মুসা, রেজওয়ানুল হক সবুজ প্রমুখ। এ ছাড়া জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা কলেজ, ইডেন কলেজ, তিতুমীর কলেজ, বাঙলা কলেজ, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ, পূর্ব, উত্তর ও পশ্চিম শাখা ছাত্রদলের নেতাকর্মী পৃথকভাবে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ-মিছিল করেন।

বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ। মহাখালী এলাকায় বিক্ষোভ-মিছিল করেছে ঢাকা মহানগর যুবদল। দক্ষিণখানে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ-মিছিল করে মহিলা দল। ধানমণ্ডিতে বিক্ষোভ-মিছিল করেন বিএনপি কেন্দ্রীয় নেতা ব্যারিস্টার নাসির উদ্দিন অসীম। মোহাম্মদপুরে ক্রাচে ভর দিয়ে মিছিল করে যুবদলের কেন্দ্রীয় সহপাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক সাজিদ হাসান বাবু। কাঁটাবন- নীলক্ষেত সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ-মিছিল করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল। সংগঠনের সভাপতি খোরশেদ আলম সোহেল ও সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলামের নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ইউনিট নেতাকর্মী ছিলেন।

অবরোধ প্রসঙ্গে রুহুল কবির রিজভী এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ভোট ডাকাতদের প্রতিহত করে বারো কোটি ভোটারের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে গণতন্ত্রের পক্ষ শক্তির দরজায় কড়া নাড়ছে বিজয়ের হাতছানি। জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত সমর্থনে সর্বাত্মক অবরোধে অচল হয়ে গেছে বাংলাদেশ। আর ভোট ডাকাত আওয়ামী সরকারের জন্য অপেক্ষা করছে জনগণের আদালতের কাঠগড়ায় বিচারের মুখোমুখি হওয়ার। ফ্যাসিস্ট সরকার শুধু নিজের অবৈধ ক্ষমতা টিকিয়ে রাখার জন্য মরিয়া হয়ে হত্যা, গুম, খুন, মিথ্যা মামলা, গ্রেপ্তারের মাধ্যমে গোটা দেশে একটি ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। জামায়াতের অবরোধ ও বিক্ষোভ:এদিন রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষোভ-মিছিল ও পিকেটিং করে জামায়াত নেতাকর্মী। সকালে রাজধানীর উত্তরা, হাতিরঝিল, মোহাম্মদপুর, বাড্ডা, মিরপুর ও পল্লবীতে বিক্ষোভ-মিছিল করেন নেতারা।

গণতন্ত্র মঞ্চসহ সমমনা দলের বিক্ষোভ : পুরানা পল্টন-বিজয়নগর ও জাতীয় প্রেস ক্লাব এলাকায় বিক্ষোভ-মিছিল করে গণতন্ত্র মঞ্চ। পরে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি, গণতন্ত্র মঞ্চের সমন্বয়ক ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির সাধারণ সম্পাদক শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন, নাগরিক ঐক্যের মোফাক্কারুল ইসলাম নবাব, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির আকবর খান এবং ভাসানী অনুসারী পরিষদের ডক্টর আবু ইউসুফ সেলিম প্রমুখ। দুপুর রাজধানীর নাইটিঙ্গেল মোড় থেকে পুরানা পল্টন পর্যন্ত বিক্ষোভ-মিছিল করে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি)। মিছিলে উপস্থিত ছিলেন এলডিপির প্রেসিডিয়াম সদস্য ডক্টর নেয়ামুল বশির, ভাইস চেয়ারম্যান মাহে আলম চৌধুরী প্রমুখ।

রাজধানীর বিজয়নগর পানির ট্যাংকির সামনে বিজয় চত্বর বিক্ষোভ-মিছিল করে ১২-দলীয় জোট। মিছিলে ছিলেন বাংলাদেশ এলডিপির মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির (জাগপা) রাশেদ প্রধান, জোটের নেতা হান্নান আহমেদ খান বাবলু প্রমুখ। এ ছাড়া নুরুল হক নূর নেতৃত্বাধীন গণ-অধিকার পরিষদ, ডক্টর রেজা কিবরিয়া নেতৃত্বাধীন গণঅধিকার পরিষদ, ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান নেতৃত্বাধীন লেবার পার্টিসহ সমমনা কয়েকটি রাজনৈতিক দল বিক্ষোভ-মিছিল করে। অবরোধের সংহতি জানিয়ে রাজধানীতে বিক্ষোভ করে আমার বাংলাদেশ পার্টিও (এবি পার্টি)।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com