বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:০৫ অপরাহ্ন

মিয়ানমারের ফৌজি সংস্থার সঙ্গে ভারতীয় কোম্পানির বাণিজ্যে

অস্ট্রেলিয়ার কার্টিন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও গবেষক তোয়ে তোয়ে থেইন জানিয়েছেন, এই কোম্পানিগুলো নৈতিকতার সঙ্গে আপস করেই মিয়ানমারে ব্যবসা চালাচ্ছে এবং এদের মধ্যে ভারতের আদানি শিল্পগোষ্ঠী বা ইনফোসিসের মতো টেক সংস্থাও রয়েছে।

২০১৭ সালে মিয়ানমারে রাখাইন প্রদেশে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে যে সামরিক অভিযান চালানো হয়েছিল, তার জন্য আন্তর্জাতিক আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গণহত্যার মামলাও চলছে, কিন্তু তার পরও সে দেশের ফৌজি সংস্থাগুলোকে বাণিজ্যিক বয়কটের মুখে পড়তে হচ্ছে না বলেই তাঁর পর্যবেক্ষণ।

বস্তুত চীন বা ভারতের মতো দেশগুলোর প্রভূত পরিমাণে বাণিজ্যিক স্বার্থ আছে বলেই রোহিঙ্গা গণহত্যার প্রশ্নে তারা সেভাবে মিয়ানমারের সমালোচনা করে না – এই অভিযোগ গত কয়েক বছরে বারে বারেই উঠেছে।অস্ট্রেলিয়া-ভিত্তিক গবেষক ও অধ্যাপক তোয়ে তোয়ে থেইনের সাম্প্রতিক এক রিপোর্টেও সেই অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হয়েছে।

পার্থ থেকে টেলিফোনে তিনি বিবিসি বাংলাকে বলছিলেন, “জাতিসংঘের প্রতিবেদনে এই প্রথমবারের মতো বিভিন্ন আন্তর্জাতিক কোম্পানির সমালোচনা করা হয়েছে – যারা মিয়ানমারের সেনার সঙ্গে অংশীদারিত্বে সে দেশে ব্যবসা চালাচ্ছে।”

“মিয়ানমার আর্মির অধীন দুটি সংস্থা, মিয়ানমার ইকোনমিক কর্পোরেশন (এমইসি) ও মিয়ানমার ইকোনমিক হোল্ডিং লিমিটেডের (এমইএইচএল) ব্যবসার মুনাফা যে সরাসরি সেনা অভিযানে ব্যবহার করা হয়েছে, জাতিসংঘ তারও প্রমাণ পেয়েছে।”

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com