বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০১:২৫ অপরাহ্ন

বিশ্বসেরা বিজ্ঞানীদের তালিকায় খুবির উপাচার্য

বিশ্বসেরা বিজ্ঞানীদের তালিকায় এ বছর মর্যাদাপূর্ণ স্থান লাভ করেছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) ফরেস্ট্রি এন্ড উড টেকনোলজি ডিসিপ্লিনের শিক্ষক, গবেষক এবং বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহমুদ হোসেন।

রবিবার এডি সাইন্টিফিক ইনডেক্স নামের আন্তর্জাতিক খ্যাতনামা সংস্থা সারা বিশ্বের ২০৬ দেশের ১৩ টি ৫৩১ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাত লাখেরও বেশি বিজ্ঞানীর সাইটেশান এবং অন্যান্য ইনডেক্সের ভিত্তিতে এই তালিকা প্রকাশ করেছে।

এই র‌্যাঙ্কিং করার ক্ষেত্রে বিশ্বের ৭ লাখ ৮ হাজার ৪৮০ জন, এশিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ১ লাখ ৫৩ হাজার ২৬২ জন, বাংলাদেশের ১ হাজার ৭৯১ জন এবং খুবির ২৯ জন বিজ্ঞানীর সংশ্লিষ্ট বিষয়ে চলতি বছরসহ গত পাঁচ বছরের সাইটেশন আমলে নেওয়া হয়। এর মধ্যে গবেষক অধ্যাপক ড. মাহমুদ হোসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি ও ফরেস্ট্রিতে এবং পৃথকভাবে ফরেস্ট্রি উভয় ক্যাটাগরিতে ১ম, দেশে ফরেস্ট্রি বিজ্ঞানীদের মধ্যে ৪র্থ, এশিয়ার বিজ্ঞানীদের মধ্যে ১৫১ তম এবং সারা বিশ্বের বিজ্ঞানীদের মধ্যে ৮২৫ তম স্থান লাভ করেছেন।

ড. মাহমুদ হোসেনের বন, কৃষি, মৃত্তিকা, পরিবেশ, প্রতিবেশ ও পর্যটন নিয়ে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক গবেষণা খ্যাতনামা জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। সুন্দরবনের ওপর তার নানাধর্মী গবেষণা রয়েছে। এ ছাড়া তিনি সংশ্লিষ্ট বিষয়ে একজন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের বিশেষজ্ঞ। দেশের মধ্যে প্রথম খুবিতে সয়েল আর্কাইভ তার উদ্যোগে ও প্রচেষ্টায় স্থাপিত হয়েছে।

খুবির উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণার ওপর বিশেষ জোর দিয়েছেন। ইতিমধ্যে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের গবেষণায় আকৃষ্ট করতে স্কলারশিপের পরিমাণ ও সংখ্যা বৃদ্ধি করা ছাড়াও গবেষণা ল্যাব উন্নয়নে পদক্ষেপ নিয়েছেন। এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আরও ২৮ জন শিক্ষক-গবেষক এই র‌্যাঙ্কিং তালিকায় বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে স্থান লাভ করেছেন।

তালিকায় স্থানপ্রাপ্ত সকলকে উপাচার্য আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। এক অভিনন্দন বার্তায় তিনি বলেন, এই অর্জন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে গবেষণায় অনুপ্রেরণা জোগাবে এবং বিশ্ববিদ্যালয়কে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নেবে।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়কে বিশ্বমানের উন্নীত করা এবং আন্তর্জাতিক পরিসরে মর্যাদাপূর্ণ অবস্থান তৈরিতে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীদের নিরন্তরভাবে গবেষণার মাধ্যমে দেশর কল্যাণে দিকনির্দেশনা প্রদান ও নতুন নতুন উদ্ভাবনার আহ্বান জানান।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com