শুক্রবার, ১২ Jul ২০২৪, ০৬:০০ অপরাহ্ন

ইতিহাসের সেরা তাহলে জোকোভিচ!

তিনি ইতিহাস গড়বেন এটা সবার জানা। কিন্তু সর্বকালের সেরা হবেন তা হয়তো অনেকে আজ থেকে ১০ বছর আগে ভাবতে পারেননি। অবশ্য কারো ভাবনার কারণে তো ইতিহাস থেমে থাকে না। তার নিজস্ব গতি চলতে থাকবে। তাই তো গতকাল রোববার আবারও নতুন ইতিহাসের জন্ম দিরেন নোভাক জোকোভিচ।

এদিন নতুন ইতিহাস গড়লেন নোভাক জোকোভিচ, সর্বকালের সেরা হবার দৌঁড়ে এগিয়ে গেলেন আরো একধাপ। ২৩তম গ্র্যান্ডস্লাম শিরোপা জিতে নিয়েছেন তিনি, তার চেয়ে বেশি এই খেতাব জিততে পারেনি আর কেউই।

রোববার (১১ জুন) ফরাসি ওপেনের খেতাব জিতে পেছনে ফেলেছেন রাফায়েল নাদালকে।

বিখ্যাত লাল সুড়কির কোর্টেই নাদালকে টপকে সর্বাধিকবার গ্র্যান্ডস্লাম খেতাব জিতলেন এই সার্বিয়ান। রোববার ফাইনালে ক্যাসপার রুডকে স্ট্রেট সেট ৭-৬, ৬-৩, ৭-৫ হারিয়ে তৃতীয় ফরাসি ওপেনের খেতাব জিতেছেন জকোভিচ। এর আগে এই বছর অস্ট্রেলিয়ান ওপেনেও চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন তিনি। ফলে বছরের দুটি গ্র্যান্ডস্লামেই জয় পেলেন জকোভিচ।

চলতি ফরাসি ওপেনে মাত্র দুটি সেটে হারেন জকোভিচ। চোটের কারণে রাফায়েল নাদাল না থাকলেও ছিলেন আলকারাস, খাচানভ, মেদভেদেভ, জেভরেভ, রুডের মত তারকা তরুণরা। কিন্তু ৩৬ বছরের জকোভিচের সাথে তারা কেউই পেরে উঠেননি৷ ফাইনালে আসলেও নিয়তি বদলাতে পারেননি ক্যাসপার রুড।

রজার ফেডেরার, রাফায়েল নাদালদের যুগে খেলেছেন। অর্থাৎ লড়াইটা যে ভয়ংকর কঠিন ছিল, তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। রোববার ফ্রেঞ্চ ওপেন জিতে নাদালকে টপকে পুরুষদের সিঙ্গলস বিভাগে সর্বাধিক গ্র্যান্ডস্ল্যাম জয়ের নজির গড়লেন জোকোভিচ। সার্বিয়ান এই তারকা জিতেছেন ২৩টি গ্র্যান্ডস্ল্যাম।

রাফায়েল নাদালের প্রিয় লাল সুড়কির কোর্টে এই জয়ের মাধ্যমে নিজের প্রেম আখ্যান লিখলেন নোভাক জোকোভিচ। আইফেল টাওয়ারের ঢিল ছোড়া দূরত্বের যে কোর্টে এক দশকের বেশি সময় ধরে রাজত্ব করেছেন নাদাল, সেই মাঠেই ‘স্প্যানিশ আর্মাডা’-কে টপকে গেলেন সার্বিয়ান তারকা। পুরুষদের সিঙ্গলসের ইতিহাসে সর্বাধিক গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের নজির গড়লেন। অথচ একটা সময় তাকে নেহাতই হার্ডকোর্টের খেলোয়াড় বলে মনে করা হতো। রবিবারসীয় প্যারিসে যে কীর্তি তৈরি করলেন জোকোভিচ, সেটা যে কয়েক যুগ টিকবে, তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই টেনিস মহলের।

জোকোভিচের রেকর্ডের ঝুলি ১) রজার ফেডেরার, রাফায়েল নাদালদের যুগে খেলেছেন। অর্থাৎ লড়াইটা যে ভয়ংকর কঠিন ছিল, তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। শুধু তাই নয়, এবার নাদালকে টপকে পুরুষদের সিঙ্গলস বিভাগে সর্বাধিক গ্র্যান্ডস্ল্যাম জয়ের নজির গড়লেন জোকোভিচ। সার্বিয়ান তারকা জিতেছেন ২৩টি গ্র্যান্ডস্ল্যাম। রাফার ঝুলিতে ২২টি গ্র্যান্ডস্ল্যাম আছে। ফেডেরার ২০টি গ্র্যান্ডস্ল্যাম জিতেছেন।

২) বয়স্কতম খেলোয়াড় হিসেবে ফরাসি ওপেন জিতলেন জোকোভিচ।

৩) প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে প্রতিটি গ্র্যান্ডস্ল্যাম কমপক্ষে তিনবার জেতার নজির গড়লেন সার্বিয়ান তারকা।

৪) ফরাসি ওপেন জয়ের ফলে ফের বিশ্বের ক্রমপর্যায়ে এক নম্বরে উঠে আসবেন জোকোভিচ। ফিরে পাবেন নিজের মুকুট। অর্থাৎ সবচেয়ে বেশিদিন বিশ্বের এক নম্বর খেলোয়াড়ের জায়গা ধরে রাখার যে রেকর্ড গড়েছেন, সেটা আরো বাড়াবেন।

কোন গ্র্যান্ডস্ল্যাম কতবার জিতেছেন জোকোভিচ? ১) অস্ট্রেলিয়ান ওপেন : ১০টি।

২) উইলম্বডন : ৭টি।

৩) ইউএস ওপেন (ফ্লাশিং মেডো) : ৩টি।

৪) ফ্রেঞ্চ ওপেন (ফরাসি ওপেন) : ৩টি।

জোকোভিচের ২৩ টি গ্র্যান্ডস্ল্যাম জয় ১) ২০০৮ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন : জো-উইলফ্রেড সঙ্গাকে ৪-৬, ৬-৪, ৬-৩, ৭-৬ (২) ব্যবধানে হারিয়ে ২০০৮ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জিতেছিলেন।

২) ২০১১ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন : অ্যান্ডি মারেকে হারিয়ে ৬-৪, ৬-২, ৬-৩ হারিয়ে দিয়েছিলেন।

৩) ২০১১ সালের উইলম্বডন : নাদালকে ৬-৪, ৬-১, ১-৬, ৬-৩ ব্যবধানে হারিয়ে দিয়েছিলেন।

৪) ২০১১ সালের ইউএস ওপেন : নাদালকে ৬-২, ৬-৪, ৬-৭ (৭), ৬-১ ব্যবধানে হারিয়ে দিয়েছিলেন।

৫) ২০১২ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন : নাদালকে ৫-৭, ৬-৪, ৬-২, ৬-৭ (৫), ৭-৫ ব্যবধানে হারিয়ে দিয়েছিলেন।

৬) ২০১৩ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন : প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে ওপেন যুগে টানা অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জয়ের হ্যাটট্রিক করেছিলেন। মারেকে ৬-৭ (২), ৭-৬ (৩), ৬-৩, ৬-২ ব্যবধানে হারিয়ে দিয়েছিলেন।

৭) ২০১৪ সালের উইলম্বডন : ঐতিহাসিক ফাইনালে ফেডেরারকে ৬-৭ (৭), ৬-৪, ৭-৬ (৪), ৫-৭, ৬-৪ ব্যবধানে হারিয়ে দিয়েছিলেন। ফেডেরারের রেকর্ড অষ্টম উইলম্বডন জয় রুখে দিয়েছিলেন।

৮) ২০১৫ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন : মারেকে ৭-৬ (৫), ৬-৭ (৪), ৬-৩, ৬-০ ব্যবধানে হারিয়ে মেলবোর্ন পার্কের বাদশা হয়ে উঠেছিলেন।

৯) ২০১৫ সালের উইলম্বডন : ফের ফেডেরারকে হারিয়ে দিয়েছিলেন। জিতেছিলেন ৭-৬ (১), ৬-৭ (১০), ৬-৪, ৬-৩।

১০) ২০১৫ সালের ইউএস ওপেন : ফেডেরারকে ৬-৪, ৫-৭, ৬-৪, ৬-৪ ব্যবধানে হারিয়ে দিয়েছিলেন।

১১) ২০১৬ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন : মারেকে ৬-১, ৭-৫, ৭-৬ (৩) ব্যবধনে হারিয়ে দিয়েছিলেন।

১২) ২০১৬ সালের ফ্রেঞ্চ ওপেন : প্রথমবার লাল সুড়কির কোর্টে গ্র্যান্ডস্ল্য়াম জিতেছিলেন। মারেকে ৩-৬, ৬-১, ৬-২, ৬-৪ ব্যবধানে হারিয়েছিলেন। কেরিয়ার গ্র্যান্ডস্ল্যাম সম্পূর্ণ হয়েছিল। ১৯৬৯ সালে বিয়ন বর্গের পর প্রথম পুরুষ খেলোয়াড় হিসেবে টানা চারটি গ্র্যান্ডস্ল্য়াম জয়ের নজির গড়েছিলেন।

১৩) ২০১৮ সালের উইলম্বডন : কেভিন অ্যান্ডারসনকে ৬-২, ৬-২, ৭-৬ (৩) ব্যবধানে হারিয়ে দিয়েছিলেন। হাঁটুতে অস্ত্রোপচারের পর প্রথম গ্র্যান্ডস্ল্যাম জিতেছিলেন।

১৪) ২০১৮ সালের ইউএস ওপেন : জুয়ান মার্টিন ডেল পেত্রোকে ৬-৩, ৭-৬ (৪), ৬-৩ ব্যবধানে হারিয়ে দিয়েছিলেন।

১৫) ২০১৯ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন : নাদালকে ৬-৩, ৬-২, ৬-২ সেটে হারিয়ে দিয়েছিলেন।

১৬) ২০১৯ সালের উইলম্বডন : ফেডেরারকে আরও একটি ঐতিহাসিক ম্যাচে ৭-৬ (৫), ১-৬, ৭-৬ (৪), ৪-৬, ১৩-১২ (৩) ব্যবাধানে হারিয়ে দিয়েছিলেন।

১৭) ২০২০ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন : ডমিনিক থিময়েমকে ৬-৪, ৪-৬, ২-৬, ৬-৩, ৬-৪ সেটে হারিয়ে দিয়েছিলেন।

১৮) ২০২১ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন : ড্যানিল মেদভেদেভ ৭-৫, ৬-২, ৬-২ ব্যবধানে হারিয়ে দিয়েছিলেন।

১৯) ২০২১ সালের ফরাসি ওপেন: স্টেফানস সিসিপাসকে ৬-৭ (৬), ২-৬, ৬-৩, ৬-২, ৬-৪ ব্যবধানে হারিয়ে দিয়েছিলেন। সেমিফাইনালে নাদালকে হারিয়েছিলেন। ফরাসি ওপেনের ইতিহাসে দ্বিতীয় খেলোয়াড় হিসেবে সেই নজির গড়েছিলেন।

২০) ২০২১ সালের উইলম্বডন : মাত্তেও বেরেত্তিনিকে ৬-৭ (৪), ৬-৪, ৬-৪, ৬-৩ ব্যবধানে হারিয়েছিলেন।

২১) ২০২২ সালের উইলম্বডন : নিক কিরগিওয়সকে ৪-৬, ৬-৩, ৬-৪, ৭-৬ (৩) সেটে হারিয়ে দিয়েছিলেন।

২২) ২০২২ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন : সিসিপাসকে ৬-৩, ৭-৬ (৪), ৭-৬ (৫) সেটে হারিয়ে দিয়েছিলেন।

২৩) ২০২৩ সালের ফ্রেঞ্চ ওপেন : ক্যাসপার রুডকে ৭-৬ (৭-১), ৬-৩, ৭-৫ ব্যবধানে হারিয়ে দিলেন। সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com