শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ১০:১৪ পূর্বাহ্ন

ক্রোম ব্রাউজারে যে ৫টি এক্সটেনশন ব্যবহার করা উচিত

ইন্টারনেট ব্রাউজারে এক্সটেনশন ব্যবহার নিয়ে বিভিন্ন মত রয়েছে। বিশেষ করে গুগল ক্রোমে এক্সটেনশন ব্যবহারের মাধ্যমে নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার সমস্যাও বিদ্যমান। এছাড়া অনেকের মতে, ব্রাউজার দিয়ে ভারী কোনো কাজ না করা হলে সেখানে এক্সটেনশন ব্যবহার না করাই ভালো। তবে প্রযুক্তিবিদরা এ বিষয়ে ভিন্নমত পোষণ করেছেন। তাদের মতে, ক্রোমের ব্যবহারিক অভিজ্ঞতায় পরিবর্তন আনার জন্য বেশকিছু এক্সটেনশন রয়েছে। ম্যাশেবল সেসব এক্সটেনশনের বিষয়ে জানিয়েছে।

এক্সটেনশন ব্যবহারের আগে সেগুলো ইনস্টলের প্রয়োজন হয়। তাই ইনস্টল পদ্ধতি সম্পর্কেও জানতে হবে। এজন্য প্রথমে সার্চ বারে ক্রোম ওয়েব স্টোর লিখে সার্চ দিতে হবে। নির্দিষ্ট এক্সটেনশনে ক্লিক করার পর অ্যাড টু ক্রোম ক্লিক করলেই সেটি যুক্ত হয়ে যাবে। ক্রোম ব্রাউজারে সবারই পাঁচটি এক্সটেনশন ব্যবহার করা প্রয়োজন।

লাস্টপাস ও ওয়ানপাসওয়ার্ড: পাসওয়ার্ড সংরক্ষণে বর্তমানে পাসওয়ার্ড ম্যানেজার ব্যবহারের পরামর্শ দিয়ে থাকেন প্রযুক্তিবিদরা। বর্তমানে লাস্টপাস ও ওয়ানপাসওয়ার্ড এদিক থেকে প্রচলিত। ক্রোম ব্রাউজারের এক্সটেনশন হিসেবে দুটিই ব্যবহার করা যায়। লাস্টপাস ও ওয়ানপাসওয়ার্ড মাস্টার পাসওয়ার্ডের মাধ্যমে সব তথ্য সংরক্ষণ করে থাকে। একবার মাস্টার পাসওয়ার্ড নির্ধারণ করে দেয়ার পর সহজেই সব জায়গায় প্রবেশ করা যাবে। এছাড়া স্মার্টফোন ও ল্যাপটপ থেকে বায়োমেট্রিক অথেনটিকেশনের সুবিধাও রয়েছে। এটি সব ওয়েবসাইটে অ্যাকাউন্ট পাসওয়ার্ড স্বয়ংক্রিয়ভাবে বসাতে সহায়তা করবে। তবে এক্সটেনশন ব্যবহার চালিয়ে যেতে হলে সাবস্ক্রিপশন গ্রহণ করতে হবে।

চোখের সুরক্ষায় ডার্ক মোড: লম্বা সময় কম্পিউটার, ল্যাপটপ বা সেলফোনের ডিসপ্লের দিকে তাকিয়ে থাকা চোখের জন্য ক্ষতিকর। আর এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার অন্যতম উপায় ডার্ক মোড এক্সটেনশন ব্যবহার। ক্রোম ব্রাউজারে ডার্ক মোড দেয়ার পর সেটি ওয়েবসাইট, পেজ হিসেবে স্বয়ংক্রিয়ভাবে অ্যাডজাস্ট হয়ে যাবে। টুলবারে এক্সটেনশনটি যুক্ত করে সহজেই ডার্ক মোড চালু বা বন্ধ করা যাবে। এছাড়া চাইলে কাস্টম থিম তৈরি করতে পারবে।

কাজের সুবিধার্থে গ্র্যামারলি: ব্রাউজার ব্যবহারকারীদের মধ্যে সবাই ডেস্ক জব না করলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মানুষের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য টাইপিং বা লেখার কাজ করতে হয়। এর মধ্যে ইমেইল, স্ল্যাক মেসেজ ও গ্রুপ চ্যাটের মতো বিষয় রয়েছে। এজন্য শুদ্ধ ব্যাকরণে কোনো কিছু লেখা জরুরি। ব্যাকরণ বা গ্রামারসংক্রান্ত সমস্যা সমাধানে ব্রাউজারে গ্র্যামারলি এক্সটেনশন ব্যবহার করা যায়। এটি চালু থাকা অবস্থায় কোনো লেখায় ভুল থাকলে সেটি দেখানো হবে। ইনস্টল করার পরই গ্র্যামারলি কাজ করা শুরু করে। সেটিংস থেকে চাইলে এক্সট্রা ফিচারও চালু করা যাবে।

গুগল ট্রান্সলেট: সবশেষ আরেকটি এক্সটেনশন হচ্ছে গুগল ট্রান্সলেট। ইন্টারনেটের বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিদেশী ভাষায় যোগাযোগ করতে হয় বা কাজ করতে হয়। এক্ষেত্রে কাজকে সহজ করতে সহায়তা করে থাকে গুগল ট্রান্সলেট। ওয়েব স্টোর থেকে টুলবারে এক্সটেনশনটি যুক্ত করার পর বেশকিছু ফিচার পাওয়া যাবে, যার মধ্যে একটি হচ্ছে ডাবল ক্লিক করার মাধ্যমে কোনো শব্দের অর্থ বা ব্যাখ্যা বের করা। ট্রান্সলেট স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভাষা শনাক্ত করবে। এছাড়া এটি ব্যবহারকারীদের পুরো বাক্য হাইলাইট করার সুবিধাও দেবে।

স্ল্যাশ গিয়ার অবলম্বনে

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com