গোপালগঞ্জে স্কুলমাঠে নৌকা বাইচ

গোপালগঞ্জে স্কুলমাঠে নৌকা বাইচ

0

নিজস্ব প্রতিবেদক, নগরকন্ঠ.কম : করোনার কারণে স্কুল বন্ধ। বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে স্কুলমাঠ। তাই খেলাধূলাও নেই। তবে বন‌্যার পানিতে ডুবে যাওয়া স্কুলের মাঠকেই আনন্দের উৎস বানিয়ে নিয়েছে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার পারুলিয়া গ্রামের তরুণরা।

শুক্রবার (২১ আগস্ট) সকালে পারুলিয়া স্কুলমাঠে এক ব্যতিক্রমী নৌকা বাইচের আয়োজন করা হয়।

নৌকা বাইচে স্থানীয় ৩০টি ডিঙ্গি নৌকা অংশ নেয়। প্রতিটি নৌকায় চারজন করে মাল্লা। একে অপরকে হারিয়ে দেওয়ার প্রাণপণ চেষ্টায় ছন্দোবদ্ধভাবে বৈঠা চালাতে থাকে প্রতিযোগীরা। যে নৌকাটি ফুটবলের গোলবারের ভিতর দিয়ে সবার আগে প্রবেশ করতে পারবে সেটিই বিজয়ী। বাইচে শিশু, কিশোর ও যুবকরা মাল্লা হিসেবে অংশ নেয়।

বাইচ দেখতে মাঠের চারপাশে দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড় ছিলো। হাততালি আর হর্ষ ধ্বনিতে বাইচে অংশ নেওয়া শিশু, কিশোর ও যুবকদের উৎসাহ দেন দর্শনার্থীরা। বাইচের কল‌্যাণে করোনা আতংক আর বন্যার কষ্ট কিছু সময়ের জন্য হলেও ভুলে গিয়েছিলেন গ্রামবাসী।

স্থানীয় তরিকুল ইসলাম খান বলেন, ‘স্কুলমাঠে নৌকা বাইচ হচ্ছে এটা ভাবা যায়! তবে এর ফলে এলাকায় একটা প্রাণচাঞ্চল‌্য দেখা গেছে। মাঠে কোথাও কোমর সমান- কোথাও হাঁটু সমান পানি। এর মধ্যে নৌকা বাইচ করা সম্ভব কেউ ভাবেনি।’

কাজী আসলাম বলেন, ‘স্কুলমাঠে ফুটবল খেলা যায়, আবার নৌকা বাইচও করা যায়। এমন যায়গা আর কোথায় মিলবে? নৌকা বাইচ দেখে খুব আনন্দ পেয়েছি।’

কাশিয়ানী উপজেলার পারুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ মকিমূল ইসলাম মকিম বলেন, ‘নৌকা বাইচ আমাদের একটি ঐতিহ্যবাহী খেলা। কারোনা ও বন্যার কারণে স্কুল বন্ধ রয়েছে। সেই সাথে শিশু-কিশোর ও যুবকদের বিনোদনেরও কোনো ব্যবস্থা নেই। স্কুলমাঠে পানি জমে থাকায় স্থানীয় যুবকরা হঠাৎ করেই নৌকা বাইচের আয়োজন করে। এতে তাদের কিছুটা হলেও বিনোদনের ব্যবস্থা হয়েছে। তারা আমাদের ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচটি ধরে রেখেছে এজন্য তাদেরকে ধন‌্যবাদ জানাই। তবে করোনার বিষয়ে আরও সতর্কতা অবলম্বন করা দরকার ছিলো।’

নগরকন্ঠ.কম/এআর

অনুরূপ খবর

0

কোন কমেন্ট নেই

উত্তর দিন