বিহারের সবচেয়ে গরিব বিধায়ক

বিহারের সবচেয়ে গরিব বিধায়ক

0

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, নগরকন্ঠ.কম : ব্যাংকে জমা ৩০ হাজার রুপি এবং ৯ লাখ রুপি মূল্যের একখণ্ড জমি- এই হচ্ছে তার সম্পদ। অথচ তিনি চারবারের নির্বাচিত বিধায়ক। গত সপ্তাহে বিহারের বিধানসভা নির্বাচনে সর্বাধিক ভোটের ব্যবধানে জয় পেয়েছেন কাটিহার জেলার বলরামপুরের সিপিআইএমএল লিবারেশনের প্রার্থী মেহবুব আলম।

এবারের নির্বাচনে মেহবুব জিতেছেন ৫৩ হাজার ৭৮ ভোটে। ২০১৫ সালেও জিতেছিলেন। তার আগে আরও দু’বার তিনি বিধায়ক হয়েছেন। এ বার মেহবুব ভোট পেয়েছেন ১ লাখ ৩ হাজার ৭৪৬ ভোট। তার প্রতিপক্ষ বিকাশশীল ইনসান পার্টির বরুণকুমার ঝা পেয়েছেন ৫০ হাজার ৬৬৮ ভোট। বিহারের আর কোনো প্রার্থী এতো বেশি ভোটের ব্যবধানে জেতেনি। এর থেকেই বোঝা যায়, নিজের এলাকায় কতখানি জনপ্রিয় এই বিধায়ক৷

শিবানন্দুপর গ্রামের কাঁচা বাড়িতে থাকেন মেহবুব। বাড়িতে ইটের গাঁথনি থাকলেও তাতে প্লাস্টার পড়েনি। মেঝে এখনও মাটির। ঘরের আসবাবও সাদামাটা। অতিথি অভ্যাগত গেলে ঘর থেকে উঠোনে নামে কয়েকটি প্লাস্টিকের চেয়ার। দুই ছেলেমেয়ে পড়াশোনা করে সরকারি স্কুলে। বিধায়ক হিসেবে বেতন ও ভাতা মিলিয়ে প্রায় ৮০ হাজার রুপি পেলে তার প্রায় সবটাই দিয়ে দেন দলের তহবিলে।

নির্বাচন কমিশনে ৬৪ বছরের মেহবুব যে হলফনামা জমা দিয়েছিলেন, তাতে দেখা যাচ্ছে তার ব্যাংকে জমা রয়েছে ৩০ হাজার রুপি। কিছু জমি, যার মোট মূল্য ৯ লাখ রুপি। একটি স্করপিও গাড়িও রয়েছে। কিন্তু সেই গাড়িটি একটি দুর্ঘটনার পর থেকে বিকল হয়ে পড়ে রয়েছে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলোর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, এবার বিহারে নির্বাচিত বিধায়কদের মধ্যে ৮১ শতাংশই কোটিপতি। আর নির্বাচিত সব বিধায়কের মধ্যে সবচেয়ে গরিব হচ্ছেন মেহবুব।

জয়ের পর সাংবাদিকদের মেহবুব বলেন, ‘আমি খুব সরল জীবনযাপন করি। এটা বামপন্থার জন্য নয়, বরং আদর্শ। আমার বিধানসভা এলাকায় অনেক মানুষকে দু’বেলা খাবারের জোগাড় করতে বহু কষ্ট করতে হয়। সেখানে আমি বিত্ত-বৈভবে দিন কাটাব, এটা ভাবতেও পারি না।’

নগরকন্ঠ.কম/এআর

কোন কমেন্ট নেই

উত্তর দিন