বৃহস্পতিবার, ০৬ মে ২০২১, ০৬:৪৩ অপরাহ্ন

কলকাতার সাবেক মেয়রের বান্ধবীকে ঘিরে এখনও সরগরম রাজনীতি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, নগরকন্ঠ.কম : কলকাতা কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র শোভন চট্টপাধ্যায়ের বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে কেন্দ্র করে পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে বিগত এক বছর ধরেই বেশ আলোচনা চলছে। বান্ধবীর কারণে স্ত্রী, পরিবার ও দল পর্যন্ত ত্যাগ করে এখনও অটুট রয়েছেন সেই সম্পর্কে। তবে বান্ধবী অবশ্য স্বামী, সংসার ও সন্তানের প্রতি বন্ধন অক্ষুন্ন রেখেই এগিয়ে চলছেন। তাদের সম্পর্ক নিয়ে নানা মুখরোচক কথা শোনা গেলেও এখন পর্যন্ত বৈশাখীর পরিবারে এ নিয়ে কোনো জটিলতা নেই। কিন্তু গত বছর দু জন এক সঙ্গে ভারতীয় জনতা পার্টিতে (বিজেপি) যোগ দিলে নানা দরকষাকষিতে দুজনের কেউই দলটিতে নিজেদের সক্রিয়তা তৈরি করেননি। বিজেপিতে সক্রিয় হওয়া নিয়ে তাদের জটিলতা এখনও কাটেনি।

মেয়র শোভন চট্টপাধ্যায় এক সময় ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেসের প্রথম সারির নেতা, কলকাতা কর্পোরেশনের মেয়র ও রাজ্যের দমকলমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। বান্ধবী বৈশাখীর জন্য পরিবারে সৃষ্ট জটিলতা থেকে তৃণমূল কংগ্রেস থেকে ইস্তফা দেন এক সময়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের খুব ঘনিষ্ঠ এই নেতা। শোভনের দাবি, বান্ধবীর অপমান তিনি মেনে নেবেন না। অন্যদিকে, বিজেপিতে যোগ দিয়েও সক্রিয় হননি তিনি কারণ তার চাওয়া, তার পাশাপাশি বিজেপিতে বৈশাখীর রাজনীতি করার পথ সুগম হোক।

শোভনকে সক্রিয় করতে বিজেপির কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকে শুরু করে রাজ্যস্তর পর্যন্ত বেশ কয়েকবার চেষ্ট হয়েছে। আগামী বিধানসভাকে কেন্দ্র করে বিজেপি রাজ্যে ক্ষমতায় আসবে, এমন দাবি করা হচ্ছে। তাই শোভনকে বিজেপিতে সক্রিয় করা গেলে কৌশলগতভাবে দলটি অনেক দূর এগিয়ে যাবে বলে মনে করা হয়। সম্প্রতি বিজেপির সাবেক সভাপতি ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ তার পশ্চিমবঙ্গ সফরে শোভন ও বৈশাখীর সঙ্গে বৈঠক করেন। সর্বশেষ, বিজেপির কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতা অরবিন্দ মেননও দুদিন আগে বৈঠক করে তাকে রাজনীতিতে সক্রিয় হতে বলেন।

কিন্তু বিজেপির রাজ্যস্তরের কিছু নেতা বৈশাখীর সক্রিয়তা মেনে নিতে পারেন না বলে সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে। আজ বিজেপির এক অনুষ্ঠানে শোভন চট্টপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানানো হলেও বৈশাখীকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। এর ফলে দু দিন আগে শোভন বিজেপিতে সক্রিয় হওয়ার যে বার্তা দিয়েছিলেন তা আবারও ভেস্তে গেল বলে শোভনের পক্ষ থেকেই জাননো হয়েছে। এর আগেও বেশ কয়েকবার এমন ঘটেছে বলে জানা যায়।

সব ঘটনা ছাপিয়ে আলোচনায় এসেছে, বান্ধবীর জন্য তার এমন শক্ত ও ধারাবাহিক অবস্থান। আজ সংবাদমাধ্যমে তিনি বলেন, আমাদের দুজনকে আলাদা করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে কিন্তু তা সম্ভব না। উল্লেখ্য, বান্ধবী বৈশাখীকে কেন্দ্র করে তার স্ত্রী রত্না চট্টপাধ্যায়ের সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায় গত বছরেই। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বাংলা।

নগরকন্ঠ.কম/এআর

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com