শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৫০ পূর্বাহ্ন

শিরোনামঃ
ইন্টারনেট নির্ভরতা যতো বেশি তৈরী হচ্ছে , ডিজিটাল অপরাধ ততো বেশি বাড়ছে : টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র : সমৃদ্ধির পথে তিস্তার চরাঞ্চল রাঙ্গামাটিতে হাইফ্লো অক্সিজেন সাপোর্ট ও করোনা ইউনিটের উদ্বোধন পিছিয়ে পড়েও লিড নিলো বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল টাস্কফোর্সের সভা : শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীনে চামড়া শিল্প কর্তৃপক্ষ নামে নতুন কর্তৃপক্ষ গঠনের প্রস্তাব যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার চায় ঢাকা বাংলাদেশ ও শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসায় জাতিসংঘ মহাসচিব দেশের মানুষ ভালো আছে বলেই বিএনপি ভালো নেই: ওবায়দুল কাদের জনগণের ভোট ও রায়ের ওপর নির্ভরকারীদের জন্য নির্বাচন বর্জন আত্মহননমূলক: তথ্যমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল : পরিকল্পনামন্ত্রী

দুই কোরিয়ার মধ্যে হটলাইন আবার চালু

উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে বিচ্ছিন্ন করা হটলাইন যোগাযোগ আবার চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দুই দেশের উচ্চ পর্যায়ের রাজনৈতিক নেতারা।

গত বছরের জুনে দুই দেশের মধ্যে একটি অসফল সামিটের পর উত্তর কোরিয়া দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে হটলাইনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছিল।

এর পরপরই দুই দেশের মধ্যে যোগাযোগ বাড়ানোর উদ্দেশ্যে স্থাপিত সীমান্তের কাছাকাছি একটি অফিস গুড়িয়ে দেয় উত্তর কোরিয়া।

তবে, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের দপ্তর ব্লু হাউজ থেকে জানানো হয়েছে, উভয় দেশই একে অপরের সাথে সম্পর্কের উন্নতি ঘটাতে সম্মত হয়েছে।

ব্লু হাউজ আরও জানিয়েছে, গত এপ্রিল থেকে দুই নেতার মধ্যে বেশ কয়েকবার চিঠি চালাচালি হয়েছে।

উত্তর কোরিয়ার সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ জানিয়েছে, শীর্ষ নেতাদের মধ্যে আলোচনা অনুযায়ী ২৭ জুলাই থেকে দুই দেশের মধ্যে সব ধরনের লিয়াজোঁ যোগাযোগ আবার চালু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার একীকরণ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, দুই দেশের প্রতিনিধিরা ফোনে তিন মিনিট ধরে কথা বলেছেন। তারা আরও বলেছে, মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) থেকে শুরু করে এখন থেকে প্রতিদিনই তাদের মধ্যে যোগাযোগ চলবে।

এর আগে ২০১৮ সালে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জে ইন এবং উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উনের মধ্যে তিনবার দেখা হওয়ার পর দুই দেশের সম্পর্কের কিছুটা উনুতি হয়েছিলো। কিন্তু এর কিছুদিন পরই তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাথে কিম জং উন দেখা করার পর দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে তাদের সম্পর্কের আবার অবনতি ঘটে।

এক পর্যায়ে উত্তর কোরিয়া দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে সব ধরনের রাজনৈতিক ও সামরিক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে। তবে, হটলাইন চালু করার আহ্বান জানিয়ে আসছিলেন দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট।

উল্লেখ্য, গত শতাব্দীর পঞ্চাশের দশকে দুই দেশের মধ্যে যুদ্ধের অবসান হওয়ার পর থেকেই উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার সম্পর্কে টানাপোড়েন চলে আসছে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com