বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৫২ অপরাহ্ন

শিরোনামঃ
ফিরে গেল পেন্সিলে আঁকা পরী পদত্যাগে বাধ্য করা ব্যাংকারদের চাকরিতে ফেরাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রজ্ঞাপন বিশ্বকাপে দুজনের নতুন শুরু একদিনে আরও ২৩৪ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে করোনায় আরও ৫১ মৃত্যু, শনাক্ত হার ৫.৯৮ শতাংশ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট এখনো ফোন না দেওয়ায় ইমরান খানের ক্ষোভ অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে হতে পারে বিসিবির নির্বাচন যুব সমাজকে ভবিষ্যতের উপযোগী করে গড়ে তুলতে প্রযুক্তিগত দক্ষতা অর্জনের বিকল্প নেই : আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জিয়া কারাগারে কত মানুষ হত্যা করেছে তা খুঁজে বের করুন: সংসদ সদস্যদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী বিএনপি অসত্য বক্তব্য উপস্থাপনকে রেওয়াজে পরিণত করেছে : ওবায়দুল কাদের

তালেবানি শাসনে সন্তান হারানোর ঝুঁকিতে আফগান একাকি মায়েরা

আফগানিস্তানের বালখ প্রদেশের রাজধানী মাজার-ই-শরিফ গত ১৪ আগস্ট তালেবানের দখলে চলে যায়। তারপর রায়হানার (নাম পরিবর্তিত) ছয় বছরের মেয়েকে নিতে এসেছিল তারা।

জানা গেছে, গত বছর তালেবানের হাতে নিহত হয়েছে রায়হানার স্বামী। তারপর থেকে মেয়েকে একাকি মা হিসেবে বড় করছেন রায়হানা।

স্বামী নিহত হওয়ার পর মেয়েকে একাকি মা হিসেবে লালন করার জন্য শ্বশুরবাড়ির লোকের বিরুদ্ধে আইনিভাবে লড়তে হয়েছে রায়হানাকে।

আফগান নাগরিক আইনের অধীনে তার অধিকারের জন্য ধন্যবাদ দিয়েছেন রায়হানা। কারণ, আফগান আইনে একাকি নারীরা তাদের সন্তানদের নিজের কাছে রাখতে পারতেন, যদি তারা সন্তানের জন্য আর্থিক ব্যবস্থা করতে পারেন।

বর্তমানে রায়হানার শহর তালেবানের দখলে। আর নিজের মেয়েকে হারানোর শঙ্কাও তৈরি হয়েছে। এবার তার পাশে কেউই নেই।

রায়হানা সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ানকে বলেছেন, যেদিন মাজার-ই-শরিফ তালেবান দখলে নিল, আমার দেবর আমার বাবার বাড়ির পাশে তালেবানদের সাথে শোডাউন দিয়েছে। আর আমি সেখানেই থাকি।

তবে ওইদিন ওই সময় রায়হানা আর তার মেয়ে বাড়িতে ছিলেন না। বিষয়টি জানতে পেরেই মেয়েকে নিয়ে তিনি অন্যত্র চলে যান।

রায়হানা বলেন, তারা আমার কাছ থেকে মেয়েকে কেড়ে নিতে চায়। আমরা একটি ট্রাকে ময়দার বস্তায় লুকিয়ে ছিলাম। যখন চালক আমাদের খুঁজে পায়, তখন আমরা তাকে কাবুল নিয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করি।

কাবুলে এসে বিভিন্ন দূতাবাসে সাহায্যের আবেদন করেন রায়হানা। একপর্যায়ে তার বোন যিনি ব্রিটেনে থাকেন, তিনি আফগানিস্তান থেকে রায়হানা ও তার মেয়েকে একটি ফ্লাইটে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করেন। বর্তমানে তারা ম্যানচেস্টারে আছেন।

রায়হানা বলেন, কঠোর প্রচেষ্টার পর আমি আফগানিস্তান থেকে বের হতে পেরেছি। আমি খুবই আনন্দিত যে, আমার মেয়ে আমার সাথে আছে। ব্রিটিশ সরকারকে অনেক ধন্যবাদ।

আফগানিস্তানে একাকি মায়ের জীবন সবসময় কলঙ্ক, দারিদ্র্য এবং প্রান্তিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। আর এখন তালেবানদের নিয়ন্ত্রণে সেইসব নারীরা নিজেদের সুরক্ষা হারিয়ে ফেলেছে এবং তাদের পরিস্থিতি ক্রমশ খারাপ হয়ে যাচ্ছে।
সূত্র: গার্ডিয়ান।

Please Share This Post in Your Social Media

যুক্তরাজ্য ৫০ বছর ও তার বেশি বয়সের মানুষ যারা বিভিন্ন কেয়ার হোমে রয়েছেন তাদেরকে এবং সম্মুখ সারিতে থাকা স্বাস্থ্য ও সমাজ সেবা কর্মীদের কভিড-১৯ টিকার বুস্টার ডোজ দেবে। মঙ্গলবার ব্রিটেন সরকার এ কথা জানিয়েছে। খবর এএফপি’র। ব্রিটেনের ভ্যাকসিন উপদেষ্টা কমিটি জয়েন্ট কমিটি অন ভ্যাকসিনেশন অ্যান্ড ইমিউনিজেশন জানায়, কোন ব্যক্তি দ্বিতীয় ডোজ টিকা নেয়ার পর ছয় মাস পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত তাকে তৃতীয় ডোজ টিকা দেয়া যাবে না। ব্রিটেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রী সাজিদ জাভেদ দেশটির পার্লামেন্টের নি¤œকক্ষ হাউস অব কমন্সকে বলেন, ‘আমি নিশ্চিত করছি যে আমি জেসিভিআই’র পরামর্শ গ্রহণ করেছি। এ ক্ষেত্রে এনএইচএস আগামী সপ্তাহ থেকে বুস্টার ডোজ দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে।’ তিনি আরো ঘোষণা দেন যে পঞ্চাষোর্ধ্ব বয়সের নাগরিকদের মধ্যে যারা ছয় মাস আগে তাদের দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন তাদের জন্য আগামী সপ্তাহ থেকে এ বুস্টার কর্মসূচি শুরু করা হবে। এ ক্ষেত্রে ফাইজার ও মডার্নার ভ্যাকসিন ব্যবহার করা হবে। ‘দীর্ঘ মেয়াদে’ এ ভাইরাসের বিরুদ্ধে সুরক্ষা নিশ্চিত করতেই এমন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে।

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com