বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৫৭ অপরাহ্ন

শিরোনামঃ
ফিরে গেল পেন্সিলে আঁকা পরী পদত্যাগে বাধ্য করা ব্যাংকারদের চাকরিতে ফেরাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রজ্ঞাপন বিশ্বকাপে দুজনের নতুন শুরু একদিনে আরও ২৩৪ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে করোনায় আরও ৫১ মৃত্যু, শনাক্ত হার ৫.৯৮ শতাংশ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট এখনো ফোন না দেওয়ায় ইমরান খানের ক্ষোভ অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে হতে পারে বিসিবির নির্বাচন যুব সমাজকে ভবিষ্যতের উপযোগী করে গড়ে তুলতে প্রযুক্তিগত দক্ষতা অর্জনের বিকল্প নেই : আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জিয়া কারাগারে কত মানুষ হত্যা করেছে তা খুঁজে বের করুন: সংসদ সদস্যদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী বিএনপি অসত্য বক্তব্য উপস্থাপনকে রেওয়াজে পরিণত করেছে : ওবায়দুল কাদের

আফগানিস্তানে মানবিক সংকট এড়াতে ৬০ কোটি ডলার চায় জাতিসংঘ

তালেবানের কাবুল দখলের আগে থেকেই আফগানিস্তানের এক কোটি ৮০ লাখ লোক ত্রাণ সহায়তার ওপর নির্ভরশীল ছিল, তাদের ক্ষমতা দখলের পর খরা, অর্থ ও খাদ্য ঘাটতির মধ্যে সংখ্যাটি আরও বেড়েছে বলে ধারণা করে আসন্ন মানবিক সংকট এড়াতে দাতাদের কাছে ৬০ কোটি ডলার চেয়েছে জাতিসংঘ। খবর বিডিনিউজের।
এই উদ্দেশ্যে আফগানিস্তানের জন্য ৬০ কোটি ডলারেরও বেশি অর্থ সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়ে সোমবার জেনিভায় একটি সাহায্য সম্মেলনের আহ্বান করেছে বিশ্বের অভিভাবক সংস্থাটি। বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, আফগানিস্তানের পশ্চিমা সমর্থিত সরকারের পতনের পর তালেবানের জয় নিশ্চিত হওয়ায় সেখানে হাজার হাজার কোটি ডলারের বৈদেশিক অনুদান হঠাৎ বন্ধ হয়ে যায়, এতে দেশটিতে থাকা জাতিসংঘের কর্মসূচিগুলোর ওপর প্রবল চাপ সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু জাতিসংঘ নিজেই এখন আর্থিক চাপে থাকায় তাদের পক্ষে অতিরিক্ত চাপ নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, বর্তমান মুহূর্তে জাতিসংঘ নিজের কর্মীদেরই বেতন দিতে পারছে না। সোমবার স্থানীয় সময় বিকালে শুরু হওয়ার কথা থাকা জেনিভা সম্মেলনে গুতেরেসসহ জাতিসংঘের শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদের পাশাপাশি রেডক্রসের আন্তর্জাতিক কমিটির প্রধান পিটার মাওরার, জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাসসহ কয়েক ডজন দেশের সরকারি প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এই সম্মেলনে দাতাদের কাছে চাওয়া মোট অর্থের প্রায় এক তৃতীয়াংশ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য সংস্থার মাধ্যমে ব্যবহার করা হতে পারে। আগস্ট ও সেপ্টেম্বরে এক হাজার ৬০০ আফগানের মধ্যে সংস্থাটির চালানো এক জরিপে দেখা গেছে, তাদের ৯৩ শতাংশই যথেষ্ট খাবার পাচ্ছেন না, কারণ খাদ্য কেনার মতো নগর অর্থ তাদের হাতে নেই। জাতিসংঘের আরেক এজেন্সি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও এই আবেদনের অংশ। দাতারা চলে যাওয়ার পর বন্ধ হওয়ার ঝুঁকিতে পড়া আফগানিস্তানের কয়েকশত স্বাস্থ্য কেন্দ্রের কার্যক্রম অব্যাহত রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছে সংস্থাটি।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com