মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০১:৪২ অপরাহ্ন

আফগান সঙ্কটে রোহিঙ্গা সমস্যা ঢাকা পড়েনি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবর্তনের বিষয়টি আফগানিস্তান সঙ্কটের কারণে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ‘ঢাকা পড়ে যায়নি’।

বুধবার হোটেল লোটে নিউ ইয়র্ক প্যালেসে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, অনেকে বলবে আফগান ইস্যুটা আসার ফলে রোহিঙ্গা ইস্যুটা সাইড লাইনে পড়ে গেছে। না, এটা এখনও খুব প্রাসঙ্গিক।

তুরস্ক সফরের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, টার্কির প্রেসিডেন্ট আমাকে বললেন, তোমার দেশের লোকজন এত কম মারা গেছে কোভিডের কারণে। তোমাদের ম্যাজিকটা কী? আমি বললাম ম্যাজিক হলো শেখ হাসিনা, উপরওয়ালা। আর আরেকটি হচ্ছে আমাদের দেশের তরুণদের সংখ্যা খুব বেশি হওয়ায় তাদের বোধহয় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক বেশি। এজন্য বোধহয় কোভিড একটু কম হয়েছে।

অনশ্য এরপরেই পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এটা বৈজ্ঞানিক কোনো বিশ্লেষণ নয়, এটা একটা পারসেপশন।

তিনি বলেন, এই যে একটা উচ্চতর অবস্থানে পৌঁছেছি, এটা শেখ হাসিনার রাজনৈতিক একটা সক্ষমতা এবং কূটনৈতিক দূরদর্শিতার জন্য সম্ভব হয়েছে।

বুধবার ‘হোয়াইট হাউস গ্লোবাল কোভিড- ১৯ সামিট: এনডিং দ্য প্যানডেমিক আর বিল্ডিং ব্যাক বেটার হেলথ সিকিউরিটি টু প্রিপেয়ার ফর দ্য নেক্সট’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠানেও ভিডিও বার্তায় ব্ক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী।

ওই অনুষ্ঠান সম্পর্কে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সরকার এই কোভিডটাকে খুব সুন্দরভাবে মানেজ করেছে। আল্লাহ মেহেরবান তৃতীয় ঢেউটাও নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এর ওপরে প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্য দিয়েছেন। এবং বিশেষ করে বাংলাদেশের যে সাফল্যের গল্প… এইক্ষেত্রে একটা সাফল্যের গল্প।

এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, সৌভাগ্যবশত আমাদের যে প্রথম ও দ্বিতীয় অতিমারী শুরু হল, তখন আমরা পরিস্থিতি অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে মোকাবেলা করেছি। প্রথম ও দ্বিতীয় অতিমারীতে সাত হাজারের কম লোক মারা যায়।

করোনাভাইরাস মহামারী মোকাবেলায় মানুষের জীবন জীবিকা সচল রাখা এবং অন্যদিকে অর্থনীতির চাকা চালু রাখতে সরকারের নেওয়া পদক্ষেপের কথাও ব্রিফিংয়ে তুলে ধরেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, কোভিড মোকাবেলায় মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যসহ সংশ্লিষ্টরা পরিকল্পনা তৈরির সময় প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছিলেন, এই মহামারীর মধ্যে দেশের কোনো লোক যেন না খেয়ে মারা না যায়।

তিনি বলেন, তখন একদিন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের স্মরণ করিয়ে দিলেন। দেখেন আপনারা আইসিইউ ইউনিট করেন, হাসপাতালের শয্যার ব্যবস্থা করেন, এগুলো আপনারা করেন, কিন্তু একটা জিনিস আপনারা কখনো ভুলবেন না। সেটি হচ্ছে যে আমার কোনো লোক যাতে না খেয়ে না মরে।

পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক (জাতিসংঘ) সামিয়া আঞ্জুমও ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com