রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৪৮ অপরাহ্ন

ফিজের স্বরূপে ফেরার প্রত্যাশা

বাংলাদেশ দলের সঙ্গে দলের বাইরের উত্তপ্ত সম্পর্ক ঠান্ডা হচ্ছেই না। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়েছিল দল মূল পর্বে ওঠায়। কিন্তু শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়ী ম্যাচ হাতছাড়া হওয়ায় আবারও পূর্বাবস্থায় ফিরেছে আবহ। লঙ্কা ম্যাচ শেষে মুশফিকুর রহিম সমালোচকদের নিজের মুখ আয়নার দেখতে বলেন। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচের আগের দিন রাতে সাবেক অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা প্রশ্ন তুললেন দলে কোচদের ভূমিকা নিয়ে। তাই বিশ্বকাপে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ শুধু প্রতিপক্ষ দলই নয়, বাইরের পরিস্থিতিও।

সোমবার ফেইসবুকে বিশাল স্ট্যাটাস দিয়েছেন মাশরাফী। সেখানে ক্রিকেটারদের উন্নতিতে কোচদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সাবেক অধিনায়ক। তার অভিযোগ বিশ্বের সব ‘অচল’ কোচ আছেন বাংলাদেশ কন্টিনজেন্টে। উন্নত কোচিং স্কিলসম্পন্ন কেউ নেই। সবাই আসেন বাংলাদেশে রিহ্যাবের মতো সুবিধা নিতে আর নিজের অভিজ্ঞতা বাড়াতে। এ কারণেই ক্রিকেটারদের স্কিলের মাত্রাও বাড়ছে না। পরদিন ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে এ প্রশ্নই গেল বোলিং কোচ ওটিস গিবসনের দিকে। গিবসনের জবাব, ‘দলের বাইরে কে কী বলছে সেটা আমাদের চিন্তা না, এটা আমাদের ভাবায়ও না। আমরা কোচরা জানি আমাদের কী করতে হবে বা কাজ কী! আসলে এই বিষয়গুলো তো আমাদের হাতে নেই, আমরা নিজেদের মধ্যে কী বলি সেটা নিয়ন্ত্রণ করতে পারি। তো এমন যদি হয় কখনো গ্রুপের কেউ মানসিকভাবে ডাউন থাকে তবে তাকে আমরা মানসিকভাবে চাঙ্গা করতে সাহায্য করি।’

বাইরের প্রতিপক্ষ বাদ দিয়ে মূল প্রতিপক্ষে আসা যাক। ইংল্যান্ডের শক্তিশালী ব্যাটিংলাইনের কথা গিবসন বারবারই স্মরণ করালেন। নিজে ইংল্যান্ডের সঙ্গে কাজ করার সুবাদে চেনেন অধিনায়ক ইয়ন মরগ্যানকে। জানালেন, মরগ্যান খুবই আগ্রাসী অধিনায়ক। প্রথম বল থেকেই উইকেট নেওয়ার চিন্তায় থাকেন এবং ব্যাটিংয়ে আক্রমণ শুরু করেন। গিবসন জানেন এ বিষয়গুলো বিপক্ষকে কতটা চাপে ফেলে। তাই বাংলাদেশ দলকে সতর্ক করছেন যেন এ দিকগুলোতে ভেঙে না পড়ে। বাইরের চিন্তার সঙ্গে দলকে যে মানসিক লড়াইয়েও নামতে হবে। তাই শিষ্যদের প্রতি গিবসনের পরামর্শ যথাসম্ভব মাথা ঠা-া রাখা। শ্রীলঙ্কা ম্যাচের মতো এবার আর সুযোগ মিস করতে চান না।

মোস্তাফিজের ফর্মে ফেরার ব্যাপারেও আশাবাদী গিবসন। জানালেন ইংলিশদের সঙ্গে ফিজের কাটার খুব গুরুত্বপূর্ণ। পিএনজি ও শ্রীলঙ্কার সঙ্গে টানা দুই ম্যাচে উইকেটহীন ফিজ। ওমানের সঙ্গে পাওয়া ৪ উইকেটের স্পেলটা আজকে দেখতে চান ফিজের কাছ থেকে। ‘ফিজ অবশ্যই আমাদের মূল বোলার। সে যেকোনো কন্ডিশনে ভালো। আইপিএলে তাকে যেমন দেখেছি তার চেয়ে বাংলাদেশের হয়ে তার কাটারগুলো বেশি কার্যকর। সে খুব দ্রুতই কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারে। অবশ্য সে আইপিএলের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাবে। সে ইনিংসের শেষদিকে আমাদের মূল বোলিং অস্ত্র।’

ইংল্যান্ডের সঙ্গে দলের ফরমেশনে পরিবর্তনের কোনো ইঙ্গিত দেননি গিবসন। জানালেন, আবুধাবির পিচ একটু স্পিন-সহায়ক। তাই এখানে চার পেসার খেলানোর সুযোগ কম। তবুও টিম ম্যানেজমেন্ট পিচ দেখে তেমন কিছু ভাবলে ব্যবহার করার মতো ভ্যারিয়েশন দলে আছে, ‘আমাদের প্রথমে কন্ডিশন দেখতে হবে। আমাদের দলে সব ভ্যারিয়েশন আছে। তাসকিন পেসের জন্য, সাইফউদ্দিন ডেথ বোলিংয়ের জন্য আর মোস্তাফিজ তো কাটারের জন্য আছেই, এছাড়া শরিফুল আছে। প্রয়োজনে চার পেসারও খেলাতে পারব। কিন্তু আবুধাবিতে চার পেসার খেলানোর অতীত খুব একটা নেই।’

বাংলাদেশের জন্য দুশ্চিন্তা বাড়িয়েছে গতকাল অনুশীলনে কিপার নুরুলের চোট। ছুটে আসা বল ঠিকমতো গ্লাভসবন্দি করতে না পারায় বল গিয়ে লাগে তার পেটে। ম্যাচের আগে ব্যথা সেরে গেলে খেলবেন আজ। নয়ত মুশফিক বা লিটনকেই উইকেটের পেছনে দাঁড়াতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com