সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৪৯ পূর্বাহ্ন

শিরোনামঃ
খালেদা জিয়া মুক্ত আছেন বলেই মুক্তভাবে চিকিৎসা নিতে পারছেন : আইনমন্ত্রী নতুন প্রজন্মের জন্য “চিরঞ্জীব মুজিব” এর মতো আরো চলচ্চিত্র নির্মাণের আহ্বান রাষ্ট্রপতির উন্নয়নশীল দেশে উত্তোরণের বিষয়ে জাতিসংঘে প্রস্তাব গ্রহণ মহান অর্জন : প্রধানমন্ত্রী ব্লু-ইকোনমির সুযোগ কাজে লাগাতে বিনিয়োগ করার জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আহ্বান জাপান সবসময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে : জাপানের ভাইস-মিনিস্টার বিআরটিসির সব বাসেই শিক্ষার্থীরা অর্ধেক ভাড়া সুবিধা পাবে ‘ওমিক্রন’ প্রতিরোধে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির ৪ সুপারিশ ওমিক্রনে দক্ষিণ আফ্রিকায় মৃত্যুহার দ্বিগুণ হয়ে যাচ্ছে আর কোনো বিপদ ছাড়াই দিন শেষ করল বাংলাদেশ ‘ওমিক্রন’ নিয়ে দেশের সব প্রবেশপথে সতর্কবার্তা

খালেদাকে বিদেশ নেওয়ার দাবি জোরালো হচ্ছে

বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে উন্নত চিকিৎসার দাবিতে বিএনপি বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছে। গতকাল বুধবার রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছেন জেলা নেতারা। এ ছাড়া নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক যৌথসভা শেষে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আট দিনব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন। পাশাপাশি সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছে খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠাতে।

খালেদা জিয়ার স্বজনরা জানিয়েছেন, ‘খালেদা জিয়ার স্বজনরা তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিতে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়েছেন। সরকারের অনুমতি পেলেই স্বজনরা খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য কিংবা জার্মানিতে নেবেন। খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম এস্কান্দার বর্তমানে আমেরিকায় অবস্থান করছেন।’

খালেদা জিয়ার সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে তার মেজো বোন সেলিমা ইসলাম গতকাল সন্ধ্যায় দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘লিভার জটিলতা প্রকট আকার ধারণ করেছে। আমরা খুবই উদ্বিগ্ন। যে দেশে নেওয়ার অনুমতি দেবে সেখানে আমরা নিয়ে যাব। সরকারের দিকে তাকিয়ে আছি আমরা।’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘চেয়ারপারসনের অবস্থা ক্রিটিক্যাল। চিকিৎসকরা সাধ্যমতো চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাচ্ছেন।’

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ‘খালেদা জিয়ার অবস্থা খুবই খারাপ। আজই তাকে বিদেশে পাঠানো দরকার। তার রক্তবমি হচ্ছে।’

লিভার সিরোসিসে ভুগছেন খালেদা জিয়া, দরকার লিভার ট্রান্সপ্লান্ট : নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক খালেদা জিয়ার এক ব্যক্তিগত চিকিৎসক গতকাল দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন লিভারের জটিল রোগে ভুগছেন। তার রক্তবমি হচ্ছে। এর আগে একবার রক্তবমি হলেও পরে তা বন্ধ হয়। তবে আবার রক্তবমি শুরু হয়েছে। চেয়ারপারসনের লিভার ট্রান্সপ্লান্ট করতে হবে। এ জন্য অবিলম্বে তাকে বিদেশে নেওয়া দরকার। সরকার যত তাড়াতাড়ি অনুমতি দেবে তত মঙ্গল। না হলে ঝুঁকির মধ্যে পড়ে যাবেন।’

আইনেই সুযোগ আছেবিএনপিপন্থি আইনজীবীরা : সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেছেন, ‘খালেদা জিয়ার ক্ষেত্রে আইনের বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই।’ এ বিষয়ে গত মঙ্গলবার বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা সচিবালয়ে আইনমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে স্মারকলিপি দিয়েছেন। আইনের ব্যাখ্যা করে স্মারকলিপিতে তারা বলেছেন, ‘বিদ্যমান আইনেই সরকারের সুযোগ আছে খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর। ফৌজদারি কার্যবিধির ধারা ৪০১-এর ১ উপধারা মোতাবেক খালেদা জিয়াকে দুটি শর্তে মুক্তি দিয়েছেন এবং বাসায় থাকা অবস্থায় তিন দফায় তার মুক্তির আদেশ বর্ধিত করা হয়েছে। তিনি অদ্যাবধি কোনো শর্ত ভঙ্গ করেননি। ৪০১ (১) ধারামতে, সরকার যেকোনো সময় শর্তহীনভাবে নতুন প্রজ্ঞাপন জারি করে অথবা ফৌজদারি কার্যবিধির ধারা ৪০১-এর ৬ উপধারা মোতাবেক বিশেষ আদেশ দ্বারা খালেদা জিয়াকে বিদেশে চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারে।’ এ ক্ষেত্রে আইনগত কোনো বাধা নেই বলেও স্মারকলিপিতে দাবি করা হয়। বলা হয়, ‘বরং সরকারের এই সিদ্ধান্ত আইনানুগ হবে।’

আট দিনের কর্মসূচি ঘোষণা বিএনপির : এদিকে গতকাল নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক যৌথসভা শেষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি ৮ দিনব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আগামীকাল ২৫ নভেম্বর (আজ বৃহস্পতিবার) রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করবে জাতীয়তাবাদী যুবদল।  রাজধানীতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এ কর্মসূচি পালন করবে যুবদলের নেতারা। শুক্রবার ২৬ নভেম্বর বাদ জুমা সারা দেশের মসজিদে মসজিদে খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনায় দোয়া করা হবে। এ ছাড়া অন্যান্য ধর্মাবলম্বীও নিজ নিজ উপাসনালয়ে প্রার্থনা করবে। ২৮ নভেম্বর রবিবার রাজধানীসহ সারা দেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করবে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দল। ঢাকায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে বিক্ষোভ পালিত হবে। ৩০ নভেম্বর বিভাগীয় সদরগুলোতে বিএনপির উদ্যোগে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এ ছাড়া ১ ডিসেম্বর ছাত্রদল সারা দেশে সমাবেশ করবে, ২ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধা দল জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করবে, ৩ তারিখে কৃষক দল ঢাকাসহ সারা দেশে সমাবেশ করবে এবং ৪ ডিসেম্বর মহিলা দল মৌন মিছিল করবে।’

কর্মসূচি প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এটা সম্পূর্ণভাবে নির্ভর করবে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার ওপরে। প্রয়োজনে কর্মসূচি পরিবর্তনও হতে পারে। সেটার সময় আপনাদের আমরা জানাব।’

খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘চেয়ারপারসনের শারীরিক অবস্থা ভেরি ক্রিটিক্যাল। চিকিৎসকরা নিয়মিত মনিটরিং করছেন এবং সাধ্য অনুযায়ী তাদের সর্বোচ্চ চিকিৎসা দিচ্ছেন। সরকার গত তিন বছরে তাকে কোনো চিকিৎসা না দিয়ে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছে, সরকার গণতন্ত্রকে হরণ করার জন্য এ ক্যারিশম্যাটিক নেত্রীকে বন্দি করে রেখেছে।’

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে নিয়ে একটি মহল অসৎ উদ্দেশ্যে গুজব ছড়াচ্ছে। এ বিষয়ে গুজবে কান না দিয়ে আমার সঙ্গে যোগাযোগ করবেন।’

রেড অ্যালার্ট জারির বিষয়ে মির্জা ফখরুল প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘এ বিষয়ে সরকারের কোনো প্রেসনোট আপনারা দেখেছেন?’

যৌথসভায় অংশ নেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, আবদুস সালাম, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু, বেলাল আহমেদ, মনির হোসেনসহ দলটির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকরা।

খালেদা জিয়াকে হত্যা করা হচ্ছেঅভিযোগ জাফরুল্লাহ চৌধুরীর : গতকাল দুপুরে রাজধানীর ধানম-িতে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী অভিযোগ করে বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে হত্যা করা হচ্ছে। এতে হুকুমের আসামি হবেন আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।’

তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া কঠিন অবস্থায় আছেন, যেকোনো সময় চলে যেতে পারেন, ডাক্তারদের সব ফাইল দেখে ও লাইন দেখে বলছি, খালেদা জিয়ার মুখ ও পায়ুপথ দিয়ে রক্তপাত হচ্ছে। চার বিচারপতির মধ্যে একজন চিফ জাস্টিস হবেন, তাই খালেদা জিয়ার ইস্যুতে জামিন দিচ্ছেন না। সুয়োমটো করে খালেদা জিয়ার জামিন দিয়ে দেন।’

‘নাগরিক সংবাদ সম্মেলনে’ অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন গণসংহতি আন্দোলনের জোনায়েদ সাকি, জাফরুল্লাহ চৌধুরীর প্রেস উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু প্রমুখ।

খালেদাকে বিদেশে পাঠানোর দাবি ২৫৮২ সাংবাদিকের : খালেদা জিয়াকে বিদেশে উন্নত চিকিৎসার সুযোগ দিতে সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন ২৫৮২ সাংবাদিক। গতকাল বুধবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক যুক্ত বিবৃতিতে তারা বলেন, ‘খালেদা জিয়া গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় বর্তমানে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালের সিসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ডাক্তাররা জানিয়েছেন, তিনি এখন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণের মতো অবস্থানে চলে গেছেন। দেশে তাকে চিকিৎসা দেওয়ার মতো আর কিছু বাকি নেই। খালেদা জিয়াকে বাঁচাতে হলে বিদেশে অ্যাডভানস সেন্টারে নিয়ে ট্রিটমেন্ট প্রয়োজন। তাই আমরা সরকারকে রাজনীতির ঊর্ধ্বে উঠে মানবিক দিক বিবেচনা করে তাকে অবিলম্বে বিদেশে চিকিৎসা নেওয়ার সুযোগ দেওয়ার আহ্বান জানাই।’

বিবৃতিতে স্বাক্ষরকারীদের মধ্যে রয়েছেন, রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ (সম্পাদক, ফাইন্যান্সিয়াল হেরাল্ড, সাবেক সভাপতি জাতীয় প্রেস ক্লাব), আলমগীর মহিউদ্দিন (সম্পাদক, দৈনিক নয়া দিগন্ত), আমানউল্লাহ (সাবেক প্রধান সম্পাদক, বাসস), আবুল আসাদ (সম্পাদক, দৈনিক সংগ্রাম), শওকত মাহমুদ (সাবেক সভাপতি, জাতীয় প্রেস ক্লাব), ড. রেজোয়ান সিদ্দিকী (সম্পাদক, দৈনিক দিনকাল) প্রমুখ।

ঢাকাসহ সারা দেশে জেলা প্রশাসকের কাছে বিএনপির স্মারকলিপি পেশ : খালেদার বিদেশে উন্নত চিকিৎসার দাবিতে ঢাকা জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দিয়েছেন বিএনপি নেতারা। এ সময় বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির, ঢাকা বিভাগীয় বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম, ঢাকা জেলা বিএনপি নেতা আবু আশফাক, দেওয়ান সালাউদ্দিন, নিপুণ রায় চৌধুরীসহ স্থানীয় বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।

এদিকে পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল খুলনা, নড়াইল, মাগুরা, ঝিনাইদহ, মেহেরপুর, জামালপুর, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম এবং ফরিদপুরসহ জেলায় জেলায় জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ শান্তিপূর্ণভাবে জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি পেশ করেছেন বলে জানিয়েছেন আমাদের দেশ রূপান্তরের ব্যুরো অফিস, নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রতিনিধিরা।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com