সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৪:৫৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনামঃ
খালেদা জিয়া মুক্ত আছেন বলেই মুক্তভাবে চিকিৎসা নিতে পারছেন : আইনমন্ত্রী নতুন প্রজন্মের জন্য “চিরঞ্জীব মুজিব” এর মতো আরো চলচ্চিত্র নির্মাণের আহ্বান রাষ্ট্রপতির উন্নয়নশীল দেশে উত্তোরণের বিষয়ে জাতিসংঘে প্রস্তাব গ্রহণ মহান অর্জন : প্রধানমন্ত্রী ব্লু-ইকোনমির সুযোগ কাজে লাগাতে বিনিয়োগ করার জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আহ্বান জাপান সবসময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে : জাপানের ভাইস-মিনিস্টার বিআরটিসির সব বাসেই শিক্ষার্থীরা অর্ধেক ভাড়া সুবিধা পাবে ‘ওমিক্রন’ প্রতিরোধে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির ৪ সুপারিশ ওমিক্রনে দক্ষিণ আফ্রিকায় মৃত্যুহার দ্বিগুণ হয়ে যাচ্ছে আর কোনো বিপদ ছাড়াই দিন শেষ করল বাংলাদেশ ‘ওমিক্রন’ নিয়ে দেশের সব প্রবেশপথে সতর্কবার্তা

দেশের ২৫ শতাংশ মানুষ দুই ডোজ টিকা নিয়েছে

দেশের ২৫ শতাংশ মানুষের দুই ডোজ করোনার টিকা সম্পন্ন হয়েছে। আর এখন পর্যন্ত ৪০ শতাংশ টিকা নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। বুধবার দুপুরে রাজধানীর একটি হোটেলে মৃগীরোগ চিকিৎসার গাইডলাইনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা জানান।

এ সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, আগামীতে আরো বড় পরিসরে টিকা দেয়া হবে। ১৪ কোটি মানুষকে টিকার আওতায় আনার লক্ষ্য রয়েছে। এরই মধ্যে ২৫ শতাংশ মানুষ দুই ডোজ টিকা পেয়েছেন।

ওই অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী অটিস্টিক মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানান।

করোনার সংক্রমন কমাতে দেশে গেল ২৭ জানুয়ারি থেকে শুরু হয় বিনামূল্যে টিকদান কর্মসূচি। এরপর থেকেই ধীরে ধীরে বয়স ভেদে টিকাদান কার্যক্রম চলতে থাকে। বাদ পড়েনি তৃতীয় লিঙ্গের মানুষও।
দেশে ২০ লাখ অটিস্টিক মানুষ রয়েছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, তাদের অধিকার নিশ্চিতে চিকিৎসা সেবার পাশাপাশি কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবে সরকার।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরো বলেন, এই মুহূর্তে মৃগীরোগসহ দেশে ২০ লাখ বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন মানুষ রয়েছে। তাদের চিকিৎসা ব্যয়বহুল। এ জন্য সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। মৃগীরোগীরা যাতে চিকিৎসা পায়, সরকার সেই চেষ্টা করছে। ৭০ ভাগ মৃগীরোগী চিকিৎসায় ভালো হয়।

বর্তমানে করোনা নিয়ন্ত্রনে থাকলেও মাস্ক খুলে চলাচলের সময় হয়নি বলেও জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব আলী নূর, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম, বিসিপিএস সভাপতি অধ্যাপক ডা. কাজী দীন মোহাম্মদ। সভাপতিত্ব করেন সোসাইটি অব নিউরোলজি বাংলাদেশের সভাপতি অধ্যাপক ডা. ফিরোজ আহমেদ কোরাইশী।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com