মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:১৮ অপরাহ্ন

শিরোনামঃ
বগুড়ায় রাইস ট্রান্সপ্লান্টারের মাধ্যমে ধানের চারা রোপণ কার্যক্রম উদ্বোধন ইসি গঠনে আইন প্রণয়ন, কমিশনকে শক্তিশালী ও প্রযুক্তিগত সহযোগিতা নিশ্চিত করাসহ বিভিন্ন প্রস্তাব আওয়ামী লীগের জুনিয়র গ্রেড কর্মকর্তাদের বেতন ৫০% পর্যন্ত বৃদ্ধি করেছে ব্র্যাক ব্যাংক ইসি গঠনে আইন ‘যেই লাউ সেই কদু’: বিএনপি আন্দোলনে ‘সংহতি’ জানাতে শাবি ক্যাম্পাসে আ. লীগ নেতারা ভার্চ্যুয়াল আদালতে ফেরার ইঙ্গিত প্রধান বিচারপতির প্রকল্প বাস্তবায়নে জেলা পর্যায়ে কমিটি করার দাবি, সায় নেই সরকারের দেশে করোনার ২০ শতাংশ রোগীই ওমিক্রনে আক্রান্ত টিকা না নিলে ফ্রেঞ্চ ওপেনেও খেলতে পারবেন না জকোভিচ আগামী মাসে সুইজারল্যান্ডের সাথে প্রীতি ম্যাচ খেলবে ইংল্যান্ড

‘সবচেয়ে নির্ভুল’ মিথ্যা ধরার যন্ত্র আবিষ্কার করল ইসরায়েল

ইসরায়েলের একদল বিজ্ঞানী দাবি করেছেন তারা ‘সবচেয়ে নির্ভুল’ মিথ্যা শনাক্তকরণ যন্ত্র আবিষ্কার করেছেন। এ যাবতকালের সব মিথ্যা শনাক্তকরণ যন্ত্রের চেয়ে নতুন আবিষ্কৃত এই যন্ত্রটি ‘সবচেয়ে নির্ভুল’ বলে দাবি করা হচ্ছে।

বলা হচ্ছে, ইসরায়েলের তেলআবিব বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীদের সদ্য আবিষ্কৃত এই যন্ত্র মুখের পেশির নড়াচড়া বিশ্লেষণ করেই বলে দিতে পারে কেউ মিথ্যা বলছেন কিনা। এবং এক্ষেত্রে যন্ত্রটি ৭৩ শতাংশ সঠিক ফলাফল দেয়।

গবেষণার সময় বিজ্ঞানীরা মিথ্যা বলা মানুষকে দুই ভাগে ভাগ করেছেন। বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, মিথ্যা বলার সময় একদল মানুষের গালের পেশি সক্রিয় হয়। অপর দলের মিথ্যা বলার সময় চোখের ভ্রুর পেশি সক্রিয় হয়।

গবেষণা দলের সদস্য অধ্যাপক ডিনো লেভি জানান, অনেক গবেষণায় দেখা যায় যে, কেউ মিথ্যা বললে তা শনাক্ত করা অসম্ভব। তাছাড়া কেউ যদি নিজের নাড়ির স্পন্দনের গতি নিয়ন্ত্রণ করেতে পারে তারা সহজেই প্রচলিত বিভিন্ন মিথ্যা শনাক্তকরণ যন্ত্রকে ফাঁকি দিতে পারবে। তবে তাদের গবেষণায় নাড়ির স্পন্দনের গতি নয়, মুখের পেশীর নড়াচড়ার উপর ভিত্তি করে মিথ্যা শনাক্ত করা হয়। তাই এখানে ফাঁকি দেওয়ার সুযোগ কম।

গবেষকরা বলেন, বর্তমানে প্রচলিত মিথ্যা শনাক্তকরণ সিস্টেমগুলো, যেমন, পলিগ্রাফ, তেমন ভাল কাজ করে না, যা আইন-আদালতে মিথ্যা ধরার জন্য যথেষ্ট ভাল নয়। আর তাছাড়া একটি শিশু, একজন সহকর্মী, বা আপনার পার্টনার এবং কুকুর মিথ্যা বলছে কিনা তা আপনি সবসময় বুঝতে পারবেন না।

গবেষকরা আশাবাদী যে, প্রযুক্তিটি আরও সঠিক এবং আরও ভাল হবে এবং প্রতারণা সনাক্ত করার মাধ্যমে নৃশংস ক্রিয়াকলাপ প্রতিরোধ করার জন্য দুর্দান্ত সম্ভাবনা বয়ে আনবে। প্রফেসর লেভি বলেন, ‘যেহেতু এটি একটি প্রাথমিক গবেষণা ছিল, তাই মিথ্যাটি খুবই সহজ ছিল। যাইহোক, বাস্তবে, দীর্ঘ মিথ্যার মধ্যে প্রতারণা এবং সত্য উভয়ই থাকে। উন্নত মেশিন লার্নিং কৌশল ব্যবহার করে, আমরা ধীরে ধীরে পরীক্ষার প্রাথমিক পর্যায় থেকে সংগৃহীত ডেটার উপর ভিত্তি করে আমাদের প্রোগ্রামকে প্রশিক্ষণ দিচ্ছি, যাতে তা সেসব জটিল মিথ্যাও ধরতে পারে’।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com