বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:০৯ পূর্বাহ্ন

শিরোনামঃ
জুনে এসএসসি, আগস্টে এইচএসসি নিতে চায় বোর্ড দেশে বুস্টার ডোজ পেয়েছেন প্রায় সাড়ে সাত লাখ অনশন ও আন্দোলন ভিন্ন ব্যাপার: জাফর ইকবাল বাংলাদেশ যখন উন্নত দেশ হওয়ার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে, ঠিক তখনই আবার ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে : সরকারি দল বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যা মামলা : মৃত্যুদন্ডাদেশপ্রাপ্ত ১৭ আসামির জেল আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বললেন পেরেরা ফ্রান্সে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের নতুন রেকর্ড নেদারল্যান্ডসকে হোয়াইটওয়াশ করলো আফগানিস্তান টিকা আবিষ্কার ও ব্যবহারের অনুমতির আগেই সরকার টিকা সংগ্রহের উদ্যোগ নেয় : প্রধানমন্ত্রী রাজনীতি ও নির্বাচন নিয়ে বিএনপির সুনির্দিষ্ট কোনো রূপরেখা নেই : ওবায়দুল কাদের

ডলারের সংকটে দাম বাড়ছেই

বেশ কয়েক মাস ধরে দেশের বাজারে মার্কিন ডলারের দাম অস্থিতিশীল, যা নতুন বছরেও স্থিতিশীল হয়নি। আগের যেকোনো সময়ের তুলনায় টাকার বিপরীতে শক্তিশালী অবস্থায় মুদ্রাটি। খোলাবাজারে আড়াই মাস ধরে ডলারের দাম ৯০ টাকার ঘরে। এখন খোলাবাজারে প্রতি ডলারের জন্য ক্রেতাকে গুনতে হচ্ছে প্রায় ৯০ টাকা ২০ পয়সা। আন্ত ব্যাংক মুদ্রাবাজারে গত কয়েক মাসে ডলারের দাম একনাগাড়ে বেড়েই যাচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, আন্ত ব্যাংক মুদ্রাবাজারে (ব্যাংক টু ব্যাংক) ৮৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে ডলার। কিন্তু বর্তমানে ব্যাংকে নগদ ডলার বিক্রি হচ্ছে আরো বেশি দামে। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ায় দেশে আমদানির চাপ বেড়েছে। ফলে এর দায় পরিশোধে বাড়তি ডলার লাগছে। এ কারণে ডলারের দাম বাড়ছে বলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা মনে করেন।

সাধারণত ডলারের দাম বাড়লে রেমিট্যান্স বৃদ্ধি ও রপ্তানিকারকরা লাভবান হন। আর ক্ষতিগ্রস্ত হয় আমদানিকারক ও সাধারণ মানুষ। কারণ ডলারের দাম বাড়লে পণ্যের মূল্যও বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। এরই মধ্যে আমদানি করা অনেক পণ্যের দাম বেড়ে গেছে।

সরেজমিনে রাজধানীর গুলশান এলাকায় বিভিন্ন মানি চেঞ্জারে ঘুরে দেখা যায়, খোলাবাজারে প্রতি মার্কিন ডলার ৯০ টাকা ২০ পয়সায় বিক্রি হচ্ছে। মানি চেঞ্জারগুলো কাস্টমারদের কাছ থেকে কিনছে ৮৯ টাকা ৮০ পয়সায়। খোলাবাজারে গত আড়াই মাস ধরেই ৯০ টাকার ওপরে ডলার বিক্রি হচ্ছে। আড়াই মাস আগে প্রতি ডলারের দাম ছিল ৮৯ টাকা ৫০ পয়সা থেকে ৮৯ টাকা ৯০ পয়সা।

কানাডিয়ান ডলারও ওঠানামা করছে। এখন প্রতি কানাডিয়ান ডলার বিক্রি হচ্ছে ৭৩ টাকা। ২০ দিন আগে ছিল ৭০ টাকা। ২০ দিনেই তিন টাকার বেশি বেড়ে গেছে। দিরহাম ২৪ টাকা ৩০ পয়সায় বিক্রি হচ্ছে।

গুলশানের স্ট্যান্ডার্ড ফরেন এক্সচেঞ্জের ইনচার্জ সুমন চন্দ্র হাওলাদার  বলেন, ‘ডলারের বাজার এখনো অস্থিতিশীল। এ বাজার স্থিতিশীল হওয়ার কোনো সম্ভাবনা দেখছি না আমরা। কারণ দেশের বাজারে চাহিদা অনুযায়ী ডলারের সরবরাহ কম। ব্যাংক তাদের চাহিদা অনুযায়ী ডলার পাচ্ছে না। খোলাবাজারেও চাহিদা অনুযায়ী ডলারের সংকট। তাই যত দিন চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ না বাড়বে, তত দিন ডলারের দাম কমবে না।’ অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, ‘চড়া বাজারে দাম ওঠানামা করলেও ডলারের দাম খুব বেশি বাড়ার সম্ভাবনা নেই।’

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com