বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৯:২০ পূর্বাহ্ন

ডিসি সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের শেষ জেলা প্রশাসক (ডিসি) সম্মেলন শুরু হয়েছে। চলবে ২৬ জানুয়ারি পর্যন্ত।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলের ডিসি সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি মূলত এ সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন।

তিন দিনব্যাপী এই সম্মেলন উদ্বোধনের পর বেলা সোয়া ১১টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের করবী হলে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মুক্ত আলোচনা হবে ডিসিদের। এরপর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে দুপুর আড়াইটা থেকে বিকেল পৌনে পাঁচটা পর্যন্ত ১৪টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সঙ্গে ডিসিদের তিনটি কার্য-অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম দিন সন্ধ্যা ৬টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে নৈশভোজ করবেন জেলা প্রশাসকরা।

সম্মেলন কেন্দ্র করে রীতি অনুযায়ী সব জেলার ডিসিদের কাছ থেকে প্রস্তাব নিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। প্রস্তাবগুলো যাচাই-বাছাই করা হয়েছে। এগুলো বই আকারে প্রকাশের প্রস্তুতি চলছে। এছাড়া গত ডিসি সম্মেলনের সিদ্ধান্তগুলো বাস্তবায়নের অগ্রগতি প্রতিবেদন মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলো থেকে সংগ্রহ করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

কার্য-অধিবেশনগুলোয় সংশ্লিষ্টমন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, সচিবরা উপস্থিত থাকেন। দ্বিতীয় দিনের প্রথম কার্য-অধিবেশনে অর্থ বিভাগ, অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ, বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ, পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ এবং পরিকল্পনা বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে ডিসিদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। এবারের সম্মেলনে মাঠ প্রশাসন থেকে আসা ২৪৫টি প্রস্তাব বিভিন্ন কর্ম-অধিবেশনে আলোচনা হবে।

সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন বেলা ৪টায় প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন ডিসিরা। প্রধান বিচারপতির নির্দেশনা গ্রহণ শেষে মাগরিবের নামাজ ও চায়ের বিরতির পর ডিসিরা যাবেন জাতীয় সংসদ ভবনে। জাতীয় সংসদ ভবনে তারা স্পিকারের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ ও মতবিনিময় করবেন। পরে স্পিকারের সঙ্গে নৈশভোজে অংশ নেবেন। সম্মেলনের তৃতীয় দিন সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সামরিক-বেসামরিক সমন্বয় বিষয়ক অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে। সন্ধ্যা ৬টায় ডিসিরা রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ ও নির্দেশনা নেবেন। একইদিন রাত ৮টায় মন্ত্রিপরিষদ সচিবের বক্তব্য ও নৈশভোজের মাধ্যমে সম্মেলন সমাপ্ত হবে।

এবার সম্মেলনে মোট ২৬টি অধিবেশন হবে। এর মধ্যে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সঙ্গে কার্য-অধিবেশন ২০টি। এছাড়া একটি উদ্বোধন অনুষ্ঠান, রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ নিয়ে একটি, স্পিকারের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ নিয়ে একটি ও প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ এবং অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতা নিয়ে দুটি অধিবেশন হবে। সম্মেলনে মোট ৫৬টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ অংশ নেবে। কার্য-অধিবেশনগুলোতে মন্ত্রণালয় ও বিভাগের প্রতিনিধি হিসাবে মন্ত্রী, উপদেষ্টা, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী, সিনিয়র সচিব ও সচিবরা উপস্থিত থাকবেন। এবারের জেলা প্রশাসক সম্মেলন স্বাস্থ্যসেবা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত ২৩টি, ভূমি মন্ত্রণালয়ের ১৫টি ও পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ১৩টি, সুরক্ষা সেবা বিভাগের ১১টি, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের ১০টিসহ মোট ২৪৫টি প্রস্তাব উপস্থাপন ও প্রস্তাবের ওপর আলোচনা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com