ত্রাণ আত্মসাতকারী ধামরাইয়ের সেই ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত

ত্রাণ আত্মসাতকারী ধামরাইয়ের সেই ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত

0

নিজস্ব প্রতিবেদক, নগরকন্ঠ.কম : ঢাকার ধামরাইয়ে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া উপহার বন্যার্তদের জন্য ত্রাণসামগ্রী আত্মসাতের ঘটনায় গ্রেফতার সেই ইউপি চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমান মিজুকে সাময়িক বরখাস্ত করে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় ওই ইউপি চেয়ারম্যানকে বরখান্ত করেছে। সেই সঙ্গে ইউপি মেম্বার মো. আইয়ুব আলী এছাককে ইউপি চেয়ারম্যানের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

শনিবার বিকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ধামরাই উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামিউল হক। মিজানুর রহমান মিজু (৬০) ধামরাই উপজেলার ৪নং যাদবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা। তিনি যাদবপুর ইউনিয়নের আমছিমুর গ্রামের আফসার উদ্দিনের ছেলে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সামিউল হক জানান, গত ১১ আগস্ট রাতে যাদবপুর ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজু দুস্থদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর বরাদ্দকৃত চাল আত্মসাতের উদ্দেশে নিজ বাড়িতে লুকিয়ে রাখেন। গোপন খবরের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাবের একটি অভিযানিক দল। রাত ২টার দিকে উপজেলার আমছিমোড় এলাকার ওই চেয়ারম্যানের নিজ বাড়ির একটি টিনশেডের কক্ষ থেকে ত্রাণের ৩৫ বস্তা ৫৬০ কেজি ওজনের ত্রাণসামগ্রী উদ্ধার করে। এ ব্যাপারে ধামরাই থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয় ওই ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।

এরপর ২১ আগস্ট স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. ইফতেখার আহম্মেদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত দুইটি চিঠিতে তাকে সাময়িক বরখাস্ত ও কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়। সেই সঙ্গে ইউপি সদস্যকে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালনের জন্য নির্দেশনা জারি করা হয়।

পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের একটি চিঠিতে গ্রেফতার হওয়া ওই ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজুকে সাময়িক বরখাস্ত কার্যকর করা হয়। অপর একটি চিঠিতে কেন তাকে চূড়ান্তু বরখাস্ত করা হবে না তার কারণ দর্শনোর জন্য বলা হয়। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় (ইউনিয়ন পরিষদ) আইনের ২০০৯ এর ধারার ৩৪(১) উপধারামতে ইউপি চেয়ারম্যানকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। আর এ শূন্যতা পূরণে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালনের জন্য মো. আইয়ুব আলী এছাককে নিযুক্ত করা হয়েছে।

নগরকন্ঠ.কম/এআর

কোন কমেন্ট নেই

উত্তর দিন