মকদ্দছ আলী সেজে লন্ডনে মকরম আলী!

মকদ্দছ আলী সেজে লন্ডনে মকরম আলী!

0

নিজস্ব প্রতিবেদক, নগরকন্ঠ.কম : মকদ্দছ আলী ওরফে মখন মিয়া সেজে লন্ডনে চলে যান চাচাতো ভাই মকরম আলী গেদা মিয়া (৫০)।

মখন মিয়া সেজে লন্ডনে অবস্থানরত তার চাচাতো ভাই গেদা মিয়া সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার অলংকারি ইউনিয়নের আলমনগর গ্রামের মৃত ইসকান্দর আলীর ছেলে। দীর্ঘ কয়েক বছর আগে সিকান্দার আলীর প্রচেষ্টায় তার অন্য সন্তানরা লন্ডনে গেলেও মকদ্দছ আলী ওরফে মখন মিয়ার পাসপোর্টের নামে লন্ডনে চলে যান মকরম আলী গেদা মিয়া।

তিন সন্তান ও স্ত্রীকে অসহায় রেখে ২০১২ সালের ৫ নভেম্বর মারা যান মকদ্দছ আলী ওরফে মখন মিয়া। আর মকরম আলী গেদা মিয়া লন্ডনে গিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। কিন্তু দেশের বাড়িতে তিন সন্তান নিয়ে অনেকটা কষ্টের মধ্যে দিনযাপন করতে হচ্ছেন মকদ্দছ আলী ওরফে মখন মিয়ার স্ত্রী কলছুমা বেগমকে (৪৫)।

সম্প্রতি মকদ্দছ আলীর বিধবা স্ত্রী ও অসহায় সন্তানদের বাড়ি থেকে তাড়ানোর পায়তারায় লিপ্ত হয়েছেন লন্ডন প্রবাসী মকরম আলী গেদা মিয়া। বিভিন্ন সময় কলছুমা বেগমকে বাড়ি ছেড়ে চলে যেতে বলেন। আর না হলে লোকজন দিয়ে প্রাণনাশের হুমকিও দিচ্ছেন।

এমন অভিযোগ এনে ২৭ আগস্ট ৬ জনকে আসামি করে কলছুমা বেগম বাদি হয়ে সিলেটের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ৩নং আমলী আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে লন্ডন প্রবাসী মকরম আলী গেদা মিয়াকে। বাকি চারজন আসামি হচ্ছেন- মকরম আলীর স্ত্রী ছানোয়ারা বেগম (৪৫), ভাগনে শানুর আলী (৩০), জিয়াউর রহমান (৩২) আব্দুল কাইয়ুম (২০) ও জাহিদ খান (২৪)।

বাদি এজাহারে আরও উল্লেখ করেন, আসামিরা গত ১৭ আগস্ট অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বাড়িতে প্রবেশ করে বাড়ি ছেড়ে চলে যেতে বলে খুনের হুমকি দেয়। তাদের চিৎকারে স্থানীয়রা এলে আসামিরা হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায়।

এ বিষয়ে মামলার প্রধান অভিযুক্ত মকরম আলী লন্ডনে থাকায় বক্তব্য নেয়া যায়নি। তবে তার ভাগনে শানুর মিয়া ও জিয়াউর রহমান সব অভিযোগ মিথ্যা দাবি করে বলেন, আমরা নয়, উল্টো মামা মকরম আলীর সম্পত্তি দখল করে রেখেছেন কলছুমা বেগম।

নগরকন্ঠ.কম/এআর

কোন কমেন্ট নেই

উত্তর দিন