বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:০৯ পূর্বাহ্ন

শিরোনামঃ
নায়িকাদের ‘ফিগার’ নিয়ে যা বলতেন ডা. মুরাদ ইমনকে র‍্যাব কার্যালয়ে নেওয়া হয়েছে আইসিসির নভেম্বরের সেরার লড়াইয়ে নাহিদা ইইউ মন্ত্রীরা স্বল্প বেতনের কর্মীদের মজুরী সুরক্ষার ব্যবস্থা নিতে সম্মত কোভিড-১৯-এর চ্যালেঞ্জ ও প্রভাব মোকাবেলায় ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টার ওপর গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশের সঙ্গে কোনো সমস্যা চায় না ভারত : মোমেন মুরাদ হাসান জেলা আওয়ামী লীগ থেকেও অব্যাহতি পাচ্ছেন : ওবায়দুল কাদের সমালোচনা সত্বেও পিএসজির খেলার ধরনে পরিবর্তন হবে না : পচেত্তিনো কিউলেক্স মশক নিধনে বিশেষ অভিযান শুরু ২২ ডিসেম্বর থেকে : মেয়র আতিক ভোলায় ডিজিটাল সেন্টারের ১১ বছর পূর্তি উদযাপন ও ই-সেবা ক্যাম্পেইন

বইমেলার স্টল ভাড়া কমানোর দাবি প্রকাশকদের

অমর একুশে বইমেলায় স্টল ভাড়া কমানোর দাবি জানিয়েছেন প্রকাশক নেতারা। এছাড়া বইমেলার দায়িত্ব প্রকাশকদের নেওয়া উচিত বলে মতামত ব্যক্ত করেছেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার।

সোমবার বাংলা একাডেমির কবি শামসুর রাহমান সেমিনার কক্ষে অনুষ্ঠিত ‘অমর একুশে বইমেলা ২০২২: আমাদের ভাবনা’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় এ দাবি জানান বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির নেতারা।

মতবিনিময়সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক মুহম্মদ নূরুল হুদা। জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ফরিদ আহমেদের সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন লেখক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল ও রামেন্দু মজুমদার। স্বাগত বক্তৃতা রাখেন সমিতির নির্বাহী পরিচালক মনিরুল হক। শুভেচ্ছা বক্তৃতা রাখেন মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্যসচিব ও বাংলা একাডেমির পরিচালক জালাল আহমেদ।

অনুষ্ঠানে বইমেলা নিয়ে বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরেন যুক্ত প্রকাশনীর প্রকাশক নিশাত জাহান রানা, অনুপম প্রকাশনীর মিলন কান্তি নাথ, তাম্রলিপির এ কে তরিকুল ইসলাম রনি, কথাপ্রকাশের জসীম উদ্দিন, ঝিঙেফুল প্রকাশনীর গিয়াসউদ্দিন খান প্রমুখ।

সভা শেষে রামেন্দু মজুমদার দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘বইমেলার আনুষ্ঠানিকতাটুকু বাংলা একাডেমির হাতে রেখে বাকি সকল দায়িত্ব প্রকাশকদের হাতে দেওয়া উচিত বলে আমি মনে করি। সেটা সভায় বলেছি। এছাড়া মেলায় কোনো প্রকার স্পনসর না নেওয়ার ব্যাপারেও মত দিয়েছি। এই বইমেলা করতে চার কোটি টাকার মতো খরচ হয়। আমি মনে করি সেটা সরকার দিতে পারে। এতে করপোরেট নির্ভরতা কমবে। আর প্রকাশকেরা করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে স্টল ভাড়া কমানোর দাবি জানিয়েছেন। তাদের এই দাবির সাথেও আমি একমত।’

প্রকাশক সমিতির পক্ষ থেকে লিখিত চিঠিতে- বইমেলার সময়কাল প্রতিদিন বিকেল ৩টা থেকে রাত ৯টা ও ছুটির দিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত নির্ধারণ করে স্টলের ভাড়া কমিয়ে আনা, খাবারের দোকানগুলো প্রবেশপথের সামনে না রাখা, প্রবেশপথ বৃদ্ধি এবং গাড়ি রাখার স্থান নির্দিষ্ট করা, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্থায়ী মেলার কাঠামো গড়ে তোলা, বইয়ের কমিশন ব্যবস্থা তুলে দেওয়া, বইমেলার অবকাঠামো বইমেলা শুরু আগেই পুরোপুরি প্রস্তুত করা, মৌসুমি প্রকাশকদের বইমেলায় স্থান না দিয়ে শুধুমাত্র মানসম্মত পেশাদারি প্রকাশকদের অংশগ্রহণের সুযোগ তৈরি করার দাবি জানানো হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com