সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ১০:১৫ অপরাহ্ন

ঘনিষ্ঠ দৃশ্যই বিচ্ছেদের কারণ!

কিছুদিন ধরে গুঞ্জন ছিল। এক দিন সত্যি সত্যিই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নিজের নামের শেষ থেকে ‘আক্কিনেনি’ পদবিটা সরিয়ে ফেলেন সামান্থা। গত বছরের অক্টোবরে ভেঙে যায় তেলেগু ছবির জনপ্রিয় দুই তারকা নাগা চৈতন্য ও সামান্থার ঘর। কিন্তু কেন ভাঙল তাদের সম্পর্ক, তা নিয়ে জল্পনার শেষ নেই। প্রকাশ্যে বিচ্ছেদ নিয়ে এত দিন মন্তব্য করেননি দুজন। অবশ্য ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে নিজের অবস্থান আগেই স্পষ্ট করেছিলেন মেগাস্টার নাগার্জুনপুত্র নাগা চৈতন্য। অবশেষে ভারতীয় একটি গণমাধ্যমে ‘বঙ্গরজু’ ছবির প্রচারের ফাঁকে বিচ্ছেদ নিয়ে সরাসরি মন্তব্য করেছেন নাগা। তিনি জানান, ‘একটা সম্মিলিত সিদ্ধান্ত এটি। ব্যক্তিগত সুখ-শান্তির জন্যই এই বিচ্ছেদ। আমি মনে করি না আমরা ভুল করেছি। এখন সে খুশি, আমিও খুশি। তাই ডিভোর্স সেসব পরিস্থিতিতে সেরা সিদ্ধান্ত।’ নাগা চৈতন্যর আলাপনে জানা গেছে, পেশাই অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছিল দুজনের দাম্পত্য জীবনে। বাড়ির বউ সাহসী দৃশ্যে অভিনয় করবেন, আইটেম গানে নাচবেন, তা চায়নি বাবা নাগার্জুন ও তার পরিবার। ছেলে নাগা চৈতন্য চেষ্টা করেছিলেন স্ত্রীকে বোঝানোর, কিন্তু সমঝোতা করতে রাজি নন সামান্থা। শ্বশুরবাড়ির এই ‘অনৈতিক দাবি’ মেনে না নেওয়ার জেরেই সংসার ছেড়ে বেরিয়ে এসেছেন তিনি। ‘দ্য ফ্যামিলি ম্যান’ সিরিজে সামান্থার সঙ্গে সহশিল্পীর ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করাটা একদম হজম করতে পারেননি নাগা, তা পরিষ্কার হলো তার মন্তব্যে। তিনি বলেন, ‘আমি এমন কোনো কাজ করব না, যা আমার পরিবারের পক্ষে সম্মানহানিকর।’ বিচ্ছেদের পর নেট দুনিয়ায় ভক্তদের একাংশের নেতিবাচক মন্তব্যের মুখে পড়েন সামান্থা। তবে তিনি মোটেও ভেঙে পড়েননি। তিনি বলেন, ‘ডিভোর্স একটা যন্ত্রণাদায়ক যাত্রা, দয়া করে আমাকে নিজের ক্ষতগুলো সারিয়ে তুলতে একটু একা থাকতে দিন। আমার ওপর ব্যক্তি আক্রমণ লাগাতার চলছে। কিন্তু জেনে রাখুন, কোনো কিছুই আমাকে ভাঙতে পারবে না।’

Please Share This Post in Your Social Media

বড় পর্দায় ২০ মে মুক্তি পেতে চলেছে বলিউডের তরুণ প্রজন্মের জনপ্রিয় নায়িকা কিয়ারা আদবানি অভিনীত ছবি ‘ভুল ভুলাইয়া ২’। আনিস বাজমি পরিচালিত এই ছবিতে তার সঙ্গে আছেন তরুণদের হার্টথ্রব নায়ক কার্তিক আরিয়ান। আরও রয়েছেন টাবু, রাজপাল যাদব, সঞ্জয় মিশ্রসহ দক্ষ অভিনয়শিল্পী। এর আগে ‘ভুল ভুলাইয়া’ ছবিতে দেখা গেছে অক্ষয় কুমার, বিদ্যা বালান, আমিশা প্যাটেল ছাড়া অনেককে। সংগত কারণে ‘ভুল ভুলাইয়া ২’ ছবির ঘোষণার পর থেকে কিয়ারার সঙ্গে বিদ্যার ক্রমাগত তুলনা টানা হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে কিয়ারার মন্তব্য, ‘ভুল ভুলাইয়া’ জনপ্রিয় ছবি ছিল। আর ‘ভুল ভুলাইয়া ২’ এর ফ্র্যাঞ্চাইজি। তাই স্বাভাবিক নিয়মে তুলনা উঠে আসবে। সব ফ্র্যাঞ্চাইজির ক্ষেত্রে এটা হয়। তবে আপনারা শুধু এই ছবির ট্রেলার দেখেছেন। তাই এখন পর্যন্ত জানেন না যে কে আসল ‘মঞ্জুলিকা’। এই ছবির সব চরিত্রে আলাদা শেডস আর ব্যক্তিত্ব লুকিয়ে আছে। আমার চরিত্রের ক্ষেত্রেও তাই। ‘ভুল ভুলাইয়া ২’ দেখার পর এই তুলনা টানা বন্ধ হবে বলে মনে হয়।’ কিয়ারাকে শেষ দেখা গেছে আমাজন প্রাইম ভিডিওর ‘শেরশাহ’ ছবিতে। এই ছবিতে ‘ডিম্পল চিমা’র চরিত্রে সবার নজর কেড়েছেন তিনি। তার অভিনীত চরিত্রটি ছোট হলেও জোরদার ছিল। অনেকে মনে করেন ‘কবির সিং’ ছবিটি কিয়ারার জীবনের মোড় অনেকটা ঘুরিয়ে দিয়েছে। তবে এ ব্যাপারে মোটেও একমত নন তিনি। এই বলিউড নায়িকার মতে, “আসলে ‘কবির সিং’ ছবি থেকে আমি প্রচুর ভালোবাসা পেয়েছি। অনেকে আমাকে বাস্তবে ‘প্রীতি’ বলে ভাবতে শুরু করেছিল। তবে আমি মনে করি যে আমার প্রতিটা ছবি-ই আমার জীবনের ‘টার্নিং পয়েন্ট’। ‘ফাগলি’ আমার ক্যারিয়ারের প্রথম টার্নিং পয়েন্ট ছিল। কারণ, এই ছবির হাত ধরে আমি ইন্ডাস্ট্রিতে পা রেখেছিলাম। আমি মনে করেছিলাম যে আমি যত কাজ করব, তত বেশি কাজ পাব। ‘লাস্ট স্টোরিজ’-এর মাধ্যমে আমি চিত্র সমালোচকদের নজরে পড়েছিলাম। সবার প্রশংসা পেয়েছিলাম। তখন বোঝার মতো বোধশক্তি ছিল না যে করণ জোহরের মতো নির্মাতার সঙ্গে কাজ করেছি। এখন পেছনের দিকে তাকালে সত্যি গর্ব অনুভব করি। কারণ, ‘লাস্ট স্টোরিজ’-এর মতো সাহসী কনটেন্টে কাজ করেছি। তবে নিশ্চয় ‘কবির সিং’ ছবির পর আমার ক্যারিয়ারের খেলাটাই যেন বদলে গেছে। ‘গুড নিউজ’, ‘শেরশাহ’ এসব ছবি আমাকে এক উচ্চতায় পৌঁছে দিয়েছে।”

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com