সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ০৮:৪৮ অপরাহ্ন

মাসুদ রানার স্রষ্টা কাজী আনোয়ার হোসেন আর নেই

জনপ্রিয় সিরিজ ‘মাসুদ রানা’ ও ‘কুয়াশা’র সিরিজের স্রষ্টা ও সেবা প্রকাশনীর প্রধান কাজী আনোয়ার হোসেন আর নেই। বুধবার বিকাল ৫টায় রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে মারা যান তিনি।

কাজী আনোয়ার হোসেনের পুত্রবধূ এবং সেবা প্রকাশনীর উপদেষ্টা মাসুমা মাইমুর ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে মাসুদ রানার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মাসুমা মাইমুর তার স্ট্যাটাসে লেখেন, ‘নিভে গেছে দীপ জনমের তরে জ্বলিবে না সে তো আর।- দূর আকাশের তারা হয়ে গেছে আমার ছেলেটা। আমার ছোট্ট ছেলেটা। আর কোনওদিনও আমার পিছু পিছু ঘুরে খুঁজবে না মায়ের গায়ের মিষ্টি গন্ধ। কোনওদিনই না। কিন্তু মাকে ছেড়ে থাকবে কীভাবে ওই অন্ধকার ঘরে আমার ছেলেটা? একা- শুধু একা? কী সব বকছি জানি না।
আব্বা ( কাজী আনোয়ার হোসেন) আর নেই। চলে গেছেন আমাদের ছেড়ে।
ইন্না-লিল্লাহ ওয়া ইন্নাইলাহি রাজিউন।

গত অক্টোবর মাসের ৩১ তারিখ প্রোস্টেট ক্যান্সার ধরা পড়ে। মাঝে পাঁচ বার হসপিটালাইজড ছিলেন। চিকিৎসার সুযোগ খুব একটা পাওয়া যায়নি। একটা ব্রেইন স্ট্রোক ও হার্টএটাক হয়ে সব শেষ হয়ে গেল। ১০ ই জানুয়ারি থেকে লাইফ সাপোর্ট এ ছিলেন। আজ চলে গেলেন আমাদের ছেড়ে। বিস্তারিত পরে জানাব। আপাতত মোবাইল অফ করে দিচ্ছি।ইনবক্সে নক না দেবার অনুরোধ রইল’

মাসুদ রানার স্রষ্ঠা কাজী আনোয়ার হোসেনের আরেকটি অনবদ্য চরিত্র কুয়াশা, অনুবাদও করেছেন প্রচুর। সেবা প্রকাশনীর মতো একটা বড় প্রকাশনা দাড়ঁ করিয়ে বাংলার অনেক তরুণদের বই পড়া শিখিয়েছেন, বিদেশের অজস্র থ্রিলার চিনিয়েছেন বাংলার পাঠকদের।

সেবা প্রকাশনীর কর্ণধার হিসাবে তিনি ষাটের দশকের মধ্যভাগে মাসুদ রানা নামে গুপ্তচর চরিত্রকে সৃষ্টি করেন। এর কিছু আগে কুয়াশা নামক আরেকটি জনপ্রিয় চরিত্র তার হাতেই জন্ম নিয়েছিল। কুয়াশা চরিত্রটি নিয়ে কাজী আনোয়ার হোসেন প্রায় ৭৬টির মতো কাহিনী রচনা করেছেন। কাজী আনোয়ার হোসেন ছদ্মনাম হিসেবে বিদ্যুৎ মিত্র ও শামসুদ্দীন নওয়াব নাম ব্যবহার করে থাকেন।

কাজী আনোয়ার হোসেন ১৯৩৬ সালের ১৯ জুলাই ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পুরো নাম কাজী শামসুদ্দিন আনোয়ার হোসেন। ডাক নাম ‘নবাব’। তার পিতা প্রখ্যাত বিজ্ঞানী, গণিতবিদ ও সাহিত্যিক কাজী মোতাহার হোসেন, মাতা সাজেদা খাতুন।

তারা ছিলেন ৪ ভাই, ৭ বোন । ঢাকা মেডিকেল কলেজের পূর্ব সীমানায় উত্তর ও দক্ষিণ কোণে যে দুটি দোতালা গেস্ট হাউজ আজও দেখা যায়, সেখানেই উত্তরের দালানটিতে আনোয়ার হোসেনের ছেলেবেলা কেটেছে। ১৯৪৩ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন বাড়ি বদল করে তারা দক্ষিণ দিকের গেস্ট হাউসে চলে আসেন।

Please Share This Post in Your Social Media

বড় পর্দায় ২০ মে মুক্তি পেতে চলেছে বলিউডের তরুণ প্রজন্মের জনপ্রিয় নায়িকা কিয়ারা আদবানি অভিনীত ছবি ‘ভুল ভুলাইয়া ২’। আনিস বাজমি পরিচালিত এই ছবিতে তার সঙ্গে আছেন তরুণদের হার্টথ্রব নায়ক কার্তিক আরিয়ান। আরও রয়েছেন টাবু, রাজপাল যাদব, সঞ্জয় মিশ্রসহ দক্ষ অভিনয়শিল্পী। এর আগে ‘ভুল ভুলাইয়া’ ছবিতে দেখা গেছে অক্ষয় কুমার, বিদ্যা বালান, আমিশা প্যাটেল ছাড়া অনেককে। সংগত কারণে ‘ভুল ভুলাইয়া ২’ ছবির ঘোষণার পর থেকে কিয়ারার সঙ্গে বিদ্যার ক্রমাগত তুলনা টানা হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে কিয়ারার মন্তব্য, ‘ভুল ভুলাইয়া’ জনপ্রিয় ছবি ছিল। আর ‘ভুল ভুলাইয়া ২’ এর ফ্র্যাঞ্চাইজি। তাই স্বাভাবিক নিয়মে তুলনা উঠে আসবে। সব ফ্র্যাঞ্চাইজির ক্ষেত্রে এটা হয়। তবে আপনারা শুধু এই ছবির ট্রেলার দেখেছেন। তাই এখন পর্যন্ত জানেন না যে কে আসল ‘মঞ্জুলিকা’। এই ছবির সব চরিত্রে আলাদা শেডস আর ব্যক্তিত্ব লুকিয়ে আছে। আমার চরিত্রের ক্ষেত্রেও তাই। ‘ভুল ভুলাইয়া ২’ দেখার পর এই তুলনা টানা বন্ধ হবে বলে মনে হয়।’ কিয়ারাকে শেষ দেখা গেছে আমাজন প্রাইম ভিডিওর ‘শেরশাহ’ ছবিতে। এই ছবিতে ‘ডিম্পল চিমা’র চরিত্রে সবার নজর কেড়েছেন তিনি। তার অভিনীত চরিত্রটি ছোট হলেও জোরদার ছিল। অনেকে মনে করেন ‘কবির সিং’ ছবিটি কিয়ারার জীবনের মোড় অনেকটা ঘুরিয়ে দিয়েছে। তবে এ ব্যাপারে মোটেও একমত নন তিনি। এই বলিউড নায়িকার মতে, “আসলে ‘কবির সিং’ ছবি থেকে আমি প্রচুর ভালোবাসা পেয়েছি। অনেকে আমাকে বাস্তবে ‘প্রীতি’ বলে ভাবতে শুরু করেছিল। তবে আমি মনে করি যে আমার প্রতিটা ছবি-ই আমার জীবনের ‘টার্নিং পয়েন্ট’। ‘ফাগলি’ আমার ক্যারিয়ারের প্রথম টার্নিং পয়েন্ট ছিল। কারণ, এই ছবির হাত ধরে আমি ইন্ডাস্ট্রিতে পা রেখেছিলাম। আমি মনে করেছিলাম যে আমি যত কাজ করব, তত বেশি কাজ পাব। ‘লাস্ট স্টোরিজ’-এর মাধ্যমে আমি চিত্র সমালোচকদের নজরে পড়েছিলাম। সবার প্রশংসা পেয়েছিলাম। তখন বোঝার মতো বোধশক্তি ছিল না যে করণ জোহরের মতো নির্মাতার সঙ্গে কাজ করেছি। এখন পেছনের দিকে তাকালে সত্যি গর্ব অনুভব করি। কারণ, ‘লাস্ট স্টোরিজ’-এর মতো সাহসী কনটেন্টে কাজ করেছি। তবে নিশ্চয় ‘কবির সিং’ ছবির পর আমার ক্যারিয়ারের খেলাটাই যেন বদলে গেছে। ‘গুড নিউজ’, ‘শেরশাহ’ এসব ছবি আমাকে এক উচ্চতায় পৌঁছে দিয়েছে।”

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com