শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ১০:৫২ অপরাহ্ন

চট্টগ্রামে করোনায় মৃত্যুশূন্য পঞ্চদশ দিন

করোনায় মৃত্যুশূন্য পঞ্চদশ দিন পার করলো চট্টগ্রাম। জেলায় সর্বশেষ এক রোগীর মৃত্যু হয় গত ২৪ জানুয়ারি। এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন ৬২ জনের দেহে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। সংক্রমণের হার ৩ দশমিক ৪৬ শতাংশ।
সিভিল সার্জন কার্যালয়ের রিপোর্ট থেকে জানা যায়, নগরীর সরকারি-বেসরকারি সাতটি ও কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ল্যাবে গতকাল সোমবার চট্টগ্রামের ১ হাজার ৭৮৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। নতুন শনাক্তদের মধ্যে শহরের বাসিন্দা ৪৮ জন এবং পাঁচ উপজেলার ১৪ জন। উপজেলায় সংক্রমণে রয়েছে আনোয়ারায় ৬ জন, হাটহাজারীতে ৪ জন, মিরসরাইয়ে ২ জন এবং সীতাকু- ও বোয়ালখালীতে ১ জন করে। জেলায় করোনা ভাইরাসে এ পর্যন্ত মোট সংক্রমিতের সংখ্যা বেড়ে ৩৩ হাজার ৫৮৬ জনে দাঁড়ালো। এতে শহরের বাসিন্দা রয়েছেন ২৬ হাজার ২৪৪ ও গ্রামের ৭ হাজার ৩৪২ জন।
গতকাল করোনায় আক্রান্ত কারো মৃত্যু হয়নি। ফলে জেলায় মোট মৃতের সংখ্যা ৩৬৯ জনই রয়েছে। এর মধ্যে শহরের ২৬৮ জন এবং বিভিন্ন উপজেলার ১০১ জন।
ল্যাবভিত্তিক প্রতিবেদনে দেখা যায়, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে। এখানে ৮৩৩ জনের নমুনায় ৯ জন পজিটিভ হিসেবে চিহ্নিত হন। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৬৪০ জনের নমুনায় ৮ জন জীবাণুবাহক পাওয়া যায়। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ল্যাবে ৬৪ টি নমুনার ৯ টিতে ভাইরাস শনাক্ত হয়। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি এন্ড এনিম্যাল সায়েন্সেস বিশ^বিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ১০২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হলে ১৬ জনের মধ্যে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব মিলে। নগরীর একমাত্র বিশেষায়িত কোভিড চিকিৎসা কেন্দ্র আন্দরকিল্লা জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) ৪ টি নমুনার সবক’টিরই নেগেটিভ রেজাল্ট আসে।
নগরীর বেসরকারি ল্যাবরেটরির মধ্যে ইম্পেরিয়াল হাসপাতালে ৪৯ টি এবং চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে ২৬ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে যথাক্রমে ১৪ ও ৬ টিতে জীবাণুর উপস্থিতি ধরা পড়ে। কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের ৭১ টি নমুনা পাঠানো হয়। পরীক্ষায় সবগুলোরই রেজাল্ট নেগেটিভ আসে।
এদিন বেসরকারি ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরি শেভরনে কোনো নমুনা পরীক্ষা হয়নি।
ল্যাবভিত্তিক রিপোর্ট বিশ্লেষণে, বিআইটিআইডি’তে ১ দশমিক ০৮, চমেকে ১ দশমিক ২৫, চবি’তে ১৪ দশমিক ০৬, সিভাসু’তে ১৫ দশমিক ৬৯, ইম্পেরিয়াল হাসপাতালে ২৮ দশমিক ৫৭ এবং মা ও শিশু হাসপাতালে ২৩ দশমিক ০৮ শতাংশ সংক্রমণ হার নির্ণিত হয়। আরটিএল ও কক্সবাজার মেডিকেলে ০ শতাংশ সংক্রমণ হার পাওয়া যায়।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com