সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৬:৩০ পূর্বাহ্ন

শিরোনামঃ
খালেদা জিয়া মুক্ত আছেন বলেই মুক্তভাবে চিকিৎসা নিতে পারছেন : আইনমন্ত্রী নতুন প্রজন্মের জন্য “চিরঞ্জীব মুজিব” এর মতো আরো চলচ্চিত্র নির্মাণের আহ্বান রাষ্ট্রপতির উন্নয়নশীল দেশে উত্তোরণের বিষয়ে জাতিসংঘে প্রস্তাব গ্রহণ মহান অর্জন : প্রধানমন্ত্রী ব্লু-ইকোনমির সুযোগ কাজে লাগাতে বিনিয়োগ করার জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আহ্বান জাপান সবসময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে : জাপানের ভাইস-মিনিস্টার বিআরটিসির সব বাসেই শিক্ষার্থীরা অর্ধেক ভাড়া সুবিধা পাবে ‘ওমিক্রন’ প্রতিরোধে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির ৪ সুপারিশ ওমিক্রনে দক্ষিণ আফ্রিকায় মৃত্যুহার দ্বিগুণ হয়ে যাচ্ছে আর কোনো বিপদ ছাড়াই দিন শেষ করল বাংলাদেশ ‘ওমিক্রন’ নিয়ে দেশের সব প্রবেশপথে সতর্কবার্তা

করোনা সংকট কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে আবাসন খাত

করোনা সংক্রমণ কমে আসায় ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করে দেশের আবাসন খাত। কিন্তু হঠাৎ নির্মাণসামগ্রীর দাম বৃদ্ধিতে আবারো শংকা বেড়েছে। রড, সিমেন্ট পাথরের বাড়তি দামে দিশেহারা সাধারণ মানুষ। ফ্ল্যাটের দাম ক্রেতাদের নাগালে রাখতে কার্যকর উদ্যোগ নেয়ার তাগিদ খাত সংশ্লিষ্টদের।

বাড়িঘরসহ স্থাপনা নির্মাণের প্রধান উপকরণ রড। তবে বেশ কিছুদিন ধরেই লাগামহীনভাবে বাড়ছে পণ্যটির দাম।

দুই সপ্তাহের ব্যবধানে মানভেদে রডের দাম প্রতি টনে বেড়েছে ৭ হাজার টাকা পর্যন্ত। বর্তমানে ৬০ গ্রেডের রড প্রতি টন কিনতে গুনতে হচ্ছে ৮০ হাজার টাকারও বেশি।গত বছর যা ছিল ৫৫ হাজার টাকার নিচে।

রড উৎপাদনকারীরা বলছেন, বিশ্ববাজারে কাঁচামাল স্ক্র্যাপ ও বিলেটের বুকিং রেট বেড়ে গিয়েছে। মার্চ-এপ্রিল মাসে স্ক্র্যাপের বুকিং দর ছিল ৪৭০ ডলার। আর এখন দিতে হচ্ছে ৬০০ ডলার পর্যন্ত। পাশাপাশি বাড়তি টাকা গুনতে হচ্ছে জাহাজ ভাড়ায়।

রডের পাশাপাশি বেড়েছে সিমেন্ট, পাথর, বালু ও টাইলসের দামও। আবাসন ব্যবসায়িরা বলছেন, নির্মাণসামগ্রীর দাম বেড়ে যাওয়ায় আবাসন নির্মাণে আগের চেয়ে খরচ বেড়েছে ১৫ শতাংশ। এতে নির্মাণাধীন ভবন শেষ করতে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে।

সামগ্রিক উন্নয়ন কাজের গতি ধরে রাখতে নির্মাণ সামগ্রীর বাজার স্বাভাবিক রাখার তাগিদ খাত সংশ্লিষ্টদের।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com