শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:৩৪ অপরাহ্ন

আ্যাশেজ : হারতে-হারতে বেঁচে গেল ইংল্যান্ড

অ্যাশেজের সিডনি টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারতে-হারতে বেঁচে  গেল সফরকারী ইংল্যান্ড। ৩৮৮ রানের জবাবে পঞ্চম ও শেষ দিন শেষে ১০২ ওভারে ৯ উইকেটে ২৭০ রান তুলে ম্যাচটি ড্র করে ইংল্যান্ড। শেষ ২ উইকেট নিয়ে দিনের শেষ ৬৪ বল পার করার চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছিলো ইংলিশরা। শেষ পর্যন্ত সমীকরন মিলিয়ে ম্যাচটি ড্র করে রুট-স্টোকস-ব্রডরা।
প্রথম তিন টেস্ট হারের পর অবশেষে হার এড়িয়ে ড্র’র স্বাদ পেলো  ইংল্যান্ড। আর প্রথম তিন টেস্ট জিতে পাঁচ ম্যাচ সিরিজ জয় আগেই নিশ্চিত করেছিলো অস্ট্রেলিয়া। ফলে সিরিজে এখন ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে অসিরা।
৩৮৮ রানের জবাবে চতুর্থ দিনের শেষ ভাগে ১১ ওভার ব্যাট করার সুযোগ পায় ইংল্যান্ড। বিনা উইকেটে ৩০ রান তুলে তারা। টেস্টটি জিততে ম্যাচের পঞ্চম ও শেষ দিনে ১০ উইকেট হাতে নিয়ে ৩৫৮ রান করতে হতো ইংল্যান্ডকে। জ্যাক ক্রলি ২২ ও হাসিব হামিদ ৮ রানে অপরাজিত ছিলেন।
পঞ্চম দিনের প্রথম সেশনেই ৩ উইকেট হারিয়ে বসে ইংল্যান্ড। ক্রলি ৭৭, হাসিব ৯ ও ডেভিড মালান ৪ রান করে ফিরেন। এরপর দলের হাল ধরেন অধিনায়ক জো রুট ও বেন স্টোকস। জয়ের পেছনে না ছুটে ড্র’র দিকেই মনোযোগী হন তারা। এজন্য উইকেটে থিতু গেড়ে বসেন  রুট-স্টোকস।
অস্ট্রেলিয়ার বোলারদের ভালোই সামলাচ্ছিলেন রুট ও স্টোকস। কিন্তু চা-বিরতির আগে অস্ট্রেলিয়াকে উইকেট শিকারের আনন্দে মাতান বাঁ-হাতি পেসার স্কট বোল্যান্ড। ৮৫ বলে ৩টি চারে ২৪ রান করা রুটকে শিকার করেন বোল্যান্ড।
এরপর প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান জনি বেয়ারস্টোর সাথে ৬১ বল খেলে ২৫ রান যোগ করে ফিরেন স্টোকস। ১২৩ বলে ১০টি চার ও ১টি ছক্কায় ৬০ রান করেন স্টোকস। এই উইকেটটি নেন লিঁও।
কিছুক্ষন বাদে অস্ট্রেলিয়ার লোয়ার-অর্ডারের দুই ব্যাটার জশ বাটলার ও মার্ক উডকে দ্রুত শিকার করে অস্ট্রেলিয়াকে জয়ের স্বপ্ন দেখান অধিনায়ক প্যাট কামিন্স। বাটলার ১১ ও উড ০ রান করেন। কিন্তু তখনও অস্ট্রেলিয়ার মাথা ব্যাথার কারন ছিলেন বেয়ারস্টো। অবশেষে ৯১ দশমিক ২ ওভারে ইংল্যান্ডের অষ্টম ব্যাটার হিসেবে বেয়ারস্টোর বিদায়র নিশ্চিত করেন বোল্যান্ড। ১০৫ বল খেলে ৪১ রান করেন বেয়ারস্টো।
তখন দিনের খেলার ৬৪ বল বাকী ছিলো। ইংল্যান্ডের হাতে ছিলো মাত্র ২ উইকেট। নবম উইকেটে ৫২ বল খেলে ৩৩ রান তুলেন দুই টেল-এন্ডার জ্যাক লিচ ও স্টুয়ার্ট ব্রড। ১শতম ওভারের শেষ বলে লিচকে বিদায় দেন অকেশনাল স্পিনার স্টিভ স্মিথ। ৩৪ বল খেলে ২৬ রান করেন লিচ।
ইংল্যান্ডের শেষ উইকেট ফেলতে ১২ বল পেয়েছিলো অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু দিনের শেষ সময়টা রুখে দেন এন্ডারসন ও ব্রড। এতে ম্যাচটি ড্র হয়। ব্রড ৩৫ বলে অপরাজিত ৮ ও এন্ডারসন ৬ বলে ০ রানে অপরাজিত থাকেন। ইংল্যান্ড করে ৯ উইকেটে ২৭০ রান। অস্ট্রেলিয়ার বোল্যান্ড ৩টি, কামিন্স-লিঁও ২টি করে উইকেট নেন। টেস্টের দুই ইনিংসে যথাক্রমে ১৩৭ ও অপরাজিত ১০১ রান করে ম্যাচ সেরা অস্ট্রেলিয়ার উসমান খাজা।
আগামী ১৪ জানুয়ারি হোবার্টে অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের পঞ্চম ও শেষ টেস্ট।
সংক্ষিপ্ত স্কোর :
অস্ট্রেলিয়া : ৪১৬/৮ডি ও ২৬৫/৬ডি, ৬৮.৫ ওভার (খাজা ১০১*, লাবুশেন ২৯, লিচ ৪/৮৪)।
ইংল্যান্ড : ২৯৪/১০ ও ২৭০/৯, ১০২ ওভার (ক্রলি ৭৭, স্টোকস ৬০, বোল্যান্ড ৩/৩০)।
ফল : ড্র।
সিরিজ : পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে অস্ট্রেলিয়া।
ম্যাচ সেরা : উসমান খাজা (অস্ট্রেলিয়া)।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2017 Nagarkantha.com